বগুড়া প্রতিনিধি : বগুড়ার শেরপুর উপজেলায় বিয়েতে দেওয়া হাতের মেহেদি মুছে না যেতেই বিয়ের দেড় মাস পরই ঝুলন্ত অবস্থায় নববধূর তানিয়া আক্তারের (১৮) লাশ উদ্ধার করেছে শেরপুর থানা পুলিশ।

তানিয়া আক্তার মির্জাপুর ইউনিয়নের বিরইল গ্রামের রবিউল ইসলামের স্ত্রী।

মঙ্গলবার (১০ মে) দুপুর ৩টায় বিরইল পশ্চিমপাড়া কাটারপোল গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

জানা যায়, শশুর-শাশুরিকে নিয়ে সকালে খাবার খেয়ে শশুর জমিতে কাজ করতে যায়। এবং শাশুড়ি ছাগল চড়াতে যায়। দুপুর সাড়ে বারোটায় বৃষ্টি হলে ছাগল নিয়ে শাশুড়ী বাড়িতে আসে। এ সময় ছেলের বউকে দেখতে না পেয়ে ডাকাডাকি করে। কোথাও সারা না পেয়ে ঘরের দরজা বন্ধ দেখে ধাক্কা দিলে তীরের সঙ্গে তার ঝুলন্ত লাশ দেখতে পায়।

গৃহবধূর ঝুলন্ত লাশ দেখে চিৎকার শুরু করে। তার চিৎকারে এলাকাবাসী এগিয়ে আসে। নববধূ তানিয়া আক্তার এর ঝুলন্ত লাশ দেখতে পেয়ে পুলিশকে খবর দেয় এলাকাবাসী।

এ বিষয়ে মির্জাপুর ইউনিয়নের ৯ নম্বর ওয়ার্ডের মেম্বার জাবেদ আলী সরকার জানান, নিহত তানিয়ার শশুর ফজলার রহমান আমাকে ফোন দিয়ে তার তার পুত্রবধু আত্মহত্যা করেছে।

নিহত তানিয়ার শশুর ফজলার রহমান জানান, সকালবেলা আমরা খাওয়া-দাওয়া করে কাজে আমি বাহিরে গিয়েছি। দুপুরে আমার স্ত্রী জানায় আমাদের পুত্রবধূ গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছে।

এ বিষয়ে শেরপুর থানার এসআই হাসান আলী জানান, খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।