খোলাবার্তা২৪ ডেস্ক : পশ্চিমবঙ্গে হাল-আমলে বিজেপি নেতা ও সাবেক অভিনেতা মিঠুন চক্রবর্তী তার বিরুদ্ধে তৃণমূলের দায়ের করা মামলা খারিজের আবেদন নিয়ে এ বার হাই কোর্টে গেলেন।

‘মহাগুরু’ হিংসায় মদত দিয়েছেন, এই অভিযোগ তুলে মানিকতলা থানায় বিজেপি নেতা মিঠুনের বিরুদ্ধে এফআইআর করেছিল তৃণমূল। সেই মামলার বিরুদ্ধে পাল্টা আইনি ব্যবস্থা নিতেই আদালতে যান বিজেপি-তে যোগ দেওয়া ওই অভিনেতা।

মিঠুন চক্রবর্তী হাইকোর্টে জানিয়েছেন, তাঁর বিরুদ্ধে তৃণমূল যে অভিযোগ তুলেছে, তা ভিত্তিহীন। কারণ হিসাবে তিনি বলেছেন, জনতার দাবিতেই তিনি তার ছায়াছবির জনপ্রিয় সংলাপগুলো জনসভায় বলেছেন। এর পিছনে অন্য কোনো উদ্দেশ্য নেই বলেও উচ্চ আদালতকে জানিয়েছেন মিঠুন। এই মামলার পিছনে রাজনৈতিক উদ্দেশ্য রয়েছে বলেও আদালতকে জানান তিনি।

প্রসঙ্গত, ‘মারব এখানে, লাশ পড়বে শ্মশানে’, ‘জাত গোখরো’, মিঠুনের এমন নানা সংলাপ নিয়ে আপত্তি তুলে মানিকতলা থানায় অভিযোগ দায়ের করে তৃণমূল। তার বিরুদ্ধে অপরাধমূলক ষড়যন্ত্র (১২০বি), উস্কানিমূলক বক্তৃতা করে শান্তিভঙ্গের চেষ্টা (৫০৪, ৫০৫), বিভিন্ন গোষ্ঠী এবং বিভিন্ন ধর্মাবলম্বীদের মধ্যে বিদ্বেষ ছড়ানো (১৫৩এ)-সহ একাধিক ধারায় মিঠুনের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে।

পশ্চিমবঙ্গে বিধানসভা ভোটের আগে গত মার্চ মাসের শুরুতে ব্রিগেডের মঞ্চে বিজেপি-তে যোগ দেন মিঠুন। সে দিনও তার মুখে শোনা যায় তার অভিনীত ছায়াছবির একাধিক সংলাপ।

মিঠুন চক্রবর্তী প্রথমে বলেন, ‘‘মারব এখানে, লাশ পড়বে শ্মশানে, এই ডায়লগটা চলবে।’’ এর পরই তিনি যোগ করেন, ‘‘আমার প্রচার শুরু করার আগে, একটা জিনিস মাথায় রাখবেন। এখানে সকলের ভাষণ এক জায়গায় করলে যা দাড়ায় তা হল, আমি জলঢোঁড়াও নই, বেলেবোড়াও নই, আমি জাত গোখরো। এক ছোবলে ছবি।’’

অবশ্য সেটাই শেষবার নয়, এরপরেও একাধিক জায়গায় বিজেপি-র হয়ে প্রচারে গিয়ে এমন মন্তব্য করেন মিঠুন।