নওগাঁ প্রতিনিধি : নওগাঁর মহাদেবপুরে অবৈধ সর্ম্পকের জের ধরে স্ত্রীকে বিবস্ত্র করে ভিডিও ধারণ, মাথার চুল কর্তন, জোরপূর্বক সাদা স্ট্যাম্প ও চেকে স্বাক্ষর নেয়ার অভিযোগ এনে রাবেয়া বসরী মুক্তা (৩৮) নামে এক গৃহবধূ স্বামী, সতিন, দেবরসহ ৬ জনকে আসামী করে থানায় মামলা দায়ের করেন।

পুলিশ তাৎক্ষণিক অভিযান চালিয়ে স্বামী ওয়াহেদ হোসেন হীরা, সতিন উম্মে হাবিবা, দেবর জোবায়েদ হোসেন মানিক ও ওয়াহেদ হোসেন বাদশাকে গ্রেফতার করে। বৃহস্পতিবার ভোরে উপজেলা সদরের লাইব্রেরী পট্টির মধ্যবাজারে এ ঘটনা ঘটে। আজ শুক্রবার দুপুরে গ্রেফতার আসামীদের কোর্টের মাধ্যমে জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে।

মামলা সূত্রে জানা যায়, মধ্যবাজার এলাকার মৃত বজলুর রহমানের ছেলে ওয়াহেদ হোসেন হীরা দাম্পত্য কলহের জেরে তার প্রথম স্ত্রী রাবেয়া বসরী মুক্তাকে প্রায়ই মারপিট করতো। স্ত্রী মুক্তার সাথে শহরের ঘোষপাড়া এলাকার মৃত আয়েজ উদ্দীন আকন্দের ছেলে এনামুল হক রাসেলের অবৈধ সম্পর্ক আছে এমন অভিযোগ এনে স্বামী হীরা, সতিন হাবিবা, দেবর মানিক ও বাদশা, মধ্যপাড়া এলাকার মৃত জান মোহাম্মেদের ছেলে সাদ্দাম হোসেন সাগর ও মৃত আইজুলের ছেলে মামুন মিলে বুধবার রাত ২টা থেকে ভোর ৬টা পর্যন্ত রাবেয়া বসরী মুক্তাকে শারিরিক নির্যাতন, মাথার চুল কর্তন, মারপিট, বিবস্ত্র করে ভিডিও ধারণ, সাদা স্ট্যাম্প ও চেকে স্বাক্ষর নেয়।

সংবাদ পেয়ে বৃহস্পতিবার সকালে থানা পুলিশ অভিযান চালিয়ে রাবেয়া বসরী মুক্তাকে উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে। বৃহস্পতিবার বিকেলে রাবেয়া বসরী মুক্তা বাদী হয়ে স্বামী সহ ৬ জনের বিরুদ্ধে মামলা করলে পুলিশ অভিযান চালিয়ে ওই ৪ জনকে গ্রেফতার করে।

মহাদেবপুর থানার অফিসার্স ইনচার্জ (ওসি) মোজাফ্ফর হোসেন জানান, স্ত্রী মুক্তাকে বিবস্ত্র করে ভিডিও ধারণ করায় ৪ জনকে গ্রেফতার করে জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে। অন্য আসামীদের গ্রেফতার জোর চেষ্টা চলছে।