নোয়াখালী প্রতিনিধি : নোয়াখালীর সেনবাগে ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচন পরবর্তী সহিংসতায় প্রতিপক্ষ আনারস মার্কার কর্মি সমর্থকদের হামলায় টেলিফোন মার্কার ৫জন সমর্থক গুরুত্বর আহত হয়েছে। আহতরা ফেনীর একটি হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছেন। এ ঘটনায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।

আহতদের মধ্যে মো.সাজু (৪৫) ও রিদয়ের (২১) অবস্থা গুরুত্বর। তাদের দুইজনকে বেধড়ক পিটিয়ে হাত ভেঙ্গে দেওয়া হয়েছে।
গত সোমবার (২৯ নভেম্বর) বিকেল সাড়ে ৩টার দিকে নির্বাচনের পরের দিন সেনবাগ উপজেলার ৮নং বীজবাগ ইউনিয়নের শ্যামেরগাঁও গ্রামের সেবাখোলা নামকস্থানে এ ঘটনা ঘটে।

৮নং বীজবাগ ইউনিয়নের নির্বাচনে টেলিফোন মার্কার স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী ও সাবেক চেয়ারম্যান হারুন অর রশিদ বলেন, রোববার ২৮ নভেম্বর বীজবাগ ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। ওই নির্বাচনে তিনি টেলিফোন মার্কা নিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বীতা করে আনারস মার্কার প্রার্থী সেলিম কাজলের নিকট পরাজিত হন।

নির্বাচনের পরের দিন তার কয়েকজন কর্মি বীজবাগ ইউনিয়নের শ্যামেরগাও গ্রামের সেবাখোলা বাজার নামকস্থানের একটি দোকানে বসে জয়-পরাজয় নিয়ে কথা বলার সময় আনারস মার্কার কর্মি ও সমর্থন রাকিব, জাকের, রুবেল, আহসান উল্যা, আবুল হাসেম, আমজাদ হোসেনে, রকি (ইয়াবা রকি), রতন ও ইব্রাহিমে নেতৃত্বে হামলা চালিয়ে সাজু ও রিদয়ের দুই হাত ভেঙ্গে দেয় এবং মারধর করে আহত করে।

এ সময় তাদের আত্মচিৎকারে স্থানীয়রা এগিয়ে এসে আহতদের উদ্ধার করে সাজু ও রিদয়কে ফেনীর একটি হাসপাতালে ভর্তি করার এবং আহত অপরদের স্থানীয় ভাবে চিকিৎসা দেন।

সেনবাগ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. ইকবাল হোসেন পাটোয়ারী জানান, বিষয়টি নিয়ে ভুক্তভোগী কেউ থানায় কোন অভিযোগ করেনি। লিখিত অভিযোগ পেলে আইনগত প্রদক্ষেপ নেওয়া হবে।