মিজানুর রহমান মিজান, রংপুর অফিস : বাংলাদেশ পুলিশ বাহিনীর গর্বিত সদস্য (কনস্টেবল) হিসেবে চাকরিজীবন শুরু করেছিলেন সোলায়মান হোসেন খাঁন। একটি দিন, একটি মাস, একটি বছর- এভাবে পুলিশ সদস্য পরিচয়ে কেটে গেছে চার দশক।

সুদীর্ঘ ৪০ বছরে নিজের মেধা, যোগ্যতা ও কর্মদক্ষতায় পুলিশের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ ইউনিটে তিনি দায়িত্ব পালন করেছেন। তার চাকরি জীবনের শেষ মুহূর্তকে স্মরণীয় করতে বিদায় সংবর্ধনার আয়োজন করেছিল রংপুর মেট্রোপলিটন পুলিশ (আরপিএমপি), রংপুর।

শনিবার (০২ অক্টোবর) বিকেলে পুলিশ লাইন্স প্রাঙ্গণে তাকে বিদায় সংবর্ধনা দেওয়া হয়। এরপর চাকরি জীবনের শেষ মুহূর্তটিকে স্মরণীয় করে রাখতে সুসজ্জিত পুলিশের গাড়িতে করে তাকে গ্রামের বাড়িতে সম্মানের সঙ্গে পৌঁছে দেওয়া হয়।

সোলায়মান হোসেন খাঁন কনস্টেবল হিসেবে সর্বশেষ রংপুর মহানগর আদালতে দায়িত্ব পালন করেন। দীর্ঘ ৪০ বছরের চাকরিজীবনের পরিসমাপ্তি ঘটিয়ে বৃহস্পতিবার (৩০ সেপ্টেম্বর) থেকে তিনি অবসর প্রস্তুতিমূলক ছুটিতে যান।

বিদায় সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে আরপিএমপির কমিশনার মোহাম্মদ আবদুল আলীম মাহমুদ বিদায়ী সহকর্মীর হাতে সম্মাননা স্মারক এবং শুভেচ্ছা উপহার তুলে দেন। সাফল্য ও সুনামের সঙ্গে দায়িত্ব পালন করার জন্য সোলায়মান হোসেন খাঁনের প্রতি কৃতজ্ঞতা ও ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন পুলিশ কমিশনার। আরপিএমপির অনান্য কর্মকর্তারাও তাকে বিদায় সংবর্ধনা জানান।

এ সময় সোলায়মানের পরিবারের সদস্যরা অনুষ্ঠানে উপস্থিতি ছিলেন। পরে আরপিএমপির একটি সুসজ্জিত গাড়িতে করে তাকে গ্রামের বাড়ি রংপুরের পীরগাছায় পৌঁছে দেওয়ার ব্যবস্থা করা হয়। সোলায়মান হোসেন খাঁন জানান, চাকরি জীবন শেষে সম্মানের সঙ্গে বিদায় নেওয়া নিঃসন্দেহে অনেক আনন্দের। এটা দৃষ্টান্ত হয়ে থাকবে। এটি তার জন্য দুর্লভ মুহূর্ত। তাকে যে সম্মান দেওয়া হয়েছে, তাতে তিনি অভিভূত তিনি কখনো এই সম্মান ক্ষনের