শেখ মোহাম্মদ আলী, সুন্দরবন অঞ্চল প্রতিনিধি : সুন্দরবনে মাছ ধরতে গিয়ে মিরাজ হাওলাদার (২৬) নামে এক জেলে নদীতে পড়ে নিখোঁজ হয়েছেন। বৃহস্পতিবার (১২ মে) বিকেলে পূর্ব বনবিভাগের শরণখোলা রেঞ্জের কালামিয়া ও শ্যালার চরসংলগ্ন নদীতে এই দুর্ঘটনা ঘটে।

তাকে উদ্ধারে স্থানীয় শতাধিক জেলে ঘটনাস্থলে তল্লাশি শুরু করছেন।

এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত (শুক্রবার বিকেল সাড়ে ৪টা) তার কোনো সন্ধান পাওয়া যায়নি। বনবিভাগ ও সঙ্গীয় জেলেরা এ তথ্য জানিয়েছেন।

নিখোঁজ জেলে মোরেলগঞ্জ উপজেলার বারৈখালী গ্রামের নাছির হাওলাদারের ছেলে। ঈদের পরের দিন বনবিভাগ থেকে পাস নিয়ে বড় ভাই পলাশ হাওলাদারের নৌকায় সুন্দরবনে মাছ ধরতে গিয়েছিলেন তিনি।

ওই নৌকায় থাকা জেলে মো. খালিদ হোসেন মুঠোফোনে বলেন, ওইদিন (বৃহস্পতিবার) বিকেল ৩টার দিকে নদীতে প্রচন্ড ঢেউ হচ্ছিল। এ সময় নদীতে নোঙর ফেলতে যায় মিরাজ। নোঙর ফেলার সময় পায়ের সঙ্গে দড়িতে প্যাঁচ লেগে নদীতে পড়ে সঙ্গে সঙ্গে তলিয়ে যায় সে। কিছুক্ষণ পর একবার তার মাথা ভেসে উঠেছিল। কিন্তু তারপরে আর খুঁজে পাইনি। নিখোঁজের পরপরই আশপাশের ২৫-৩০টি নৌকার এক-দেড় শ’ জেলে ছুটে আসে। সেই থেকে আমরা সবাই মিলে তল্লাশি করছি। খবর পেয়ে শ্যালার চরের বনরক্ষীরাও ঘটনাস্থলে এসেছিল।

এ ব্যাপারে মুঠোফোনে কথা হয় নিখোঁজ জেলের বাবা মো. নাছির হাওলাদারের সঙ্গে। তিনি জানান, তার বড় ছেলে পলাশের নৌকায় ছোট ছেলে মিরাজ মাছ ধরতে গিয়েছিল। ওরা দুই ভাই একসাথেই মাছ ধরে সুন্দরবেন। তিন-চার মাস আগে মিরাজকে বিয়ে করিয়েছেন। ঈদের আগে নতুন বউকে ঘরে তুলেছেন। কিন্তু এরই মধ্যে বিপদ ঘটে গেলো। তার দুই ছেলেসহ ওই নৌকায় মোট ছয় জন জেলে ছিলেন। ছেলেকে উদ্ধারের জন্য বনবিভাগ ও কোস্টগার্ডের কাছে দাবি জানান তিনি।

পূর্ব বনবিভাগের শরণখোলা ও চাঁদপাই রেঞ্জের সহকারী বনসংরক্ষ (এসএিফ) মো. শহিদুল ইসলাম জানান, সুন্দরবনে নয়, শ্যালার চরসংলগ্ন সাগরে নিখোঁজ হয়েছে। স্থানীয় জেলেরা ওই এলাকায় তল্লাশি করছে। আবহাওয়া খারাপ থাকায় সেখানে প্রচন্ড ঢেউ হচ্ছে। সংশ্লিষ্ট এলাকার বনরক্ষীদের ঘটনাস্থলে গিয়ে খোঁজখবর নিতে বলা হয়েছে।