সীমান্তে নিরীহ বাংলাদেশী নাগরিক হত্যার দায় বাংলাদেশেরও বলে দাবি করেছেন নাগরিক পরিষদের আহ্বায়ক মোহাম্মদ শামসুদ্দীন। আধিপত্যবাদী আগ্রাসন রোধ ও সীমান্ত হত্যা বন্ধের দাবীতে বৃহস্পতিবার ২৯ ডিসেম্বর (বৃহস্পতিবার) বিকালে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে নাগরিক পরিষদ আয়োজিত এক মানববন্ধনে সভাপতির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

মানববন্ধনে আরো বক্তব্য রাখেন, মফস্বল সাংবাদিক এসোসিয়েশনের চেয়ারম্যান সাখাওয়াত ইবনে মঈন চৌধুরী, শ্রমিক নেতা আব্দুর রহমান, মহানগর গণঅধিকার পরিষদ নেতা আহমদ ইসমাঈল বন্ধন, মানবাধিকার নেতা মঞ্জুর হোসেন ঈসা, গণঅধিকার পরিষদের কেন্দ্রীয় নেতা তোফাজ্জল হোসেন, আবরার ফাহাদ দিবস পালনে কারানির্যাতন ভোগকারী ছাত্রনেতা তসলিম অভি, যুবনেতা শামীম রেজা, যুবনেতা সিয়াদাত রাজসহ বিভিন্ন রাজনীতিক ও শ্রেণীপেশার নেতৃবৃন্দ।

মানববন্ধনে মোহাম্মদ শামসুদ্দীন বলেন, জনগণ ভোটাধিকার বঞ্চিত, দ্রব্যমূল্য লাগামহীন, স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্ব হুমকির সম্মুখীন, সীমান্ত হত্যায় জনগণ আতঙ্কগ্রস্ত। আর কত বাংলাদেশী নিরস্ত্র-নিরীহ বাংলাদেশী নাগরিককে হত্যা করলে আমাদের জাতি রাষ্ট্রের টনক নড়বে। বারবার সীমান্তে গুলি, খুন, নির্যাতন, লাশ গুম এটি কোন ধরণের বন্ধুত্বের নমুনা? বন্ধুর বুকে বন্ধু কখনো গুলি চালায় না। এটি পৃথিবীতে নজিরবিহীন। অথচ আমাদের রাষ্ট্র নিশ্চুপ। শেখ হাসিনা কোন ভাবেই এই হত্যার দায় এড়াতে পারেননা। নাগরিককে রক্ষায় ব্যর্থতার জন্য অবশ্যই জবাবদিহি করতে হবে।

মানববন্ধনে বক্তাগণ বলেন, স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্ব আজকে হুমকির সম্মুখীন। জাতীয় ঐক্যই একমাত্র সমাধান। স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্বের প্রধান চ্যালেঞ্জ আধিপত্যবাদের এদেশীয় দালালরা। ২০০০-২০২১ পর্যন্ত ২১ বছরে প্রায় দুই হাজার বাংলাদেশের নিরস্ত্র-নিরীহ নাগরিকদের সীমান্তে হত্যার ধারাবাহিকতায় এই হত্যা। যা খুবই নিন্দনীয়। সীমান্ত হত্যা নিয়ে বাংলাদেশের সরকার এবং বিবেকবানদের নিবার্ক থাকা হতাশাব্যঞ্জক। বারবার সীমান্ত হত্যা, সার্বভৌমত্বের লঙ্ঘন, আমাদের স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্বকে অবহেলার সামিল। জাতি রাষ্ট্র হিসেবে বাংলাদেশকে ভারত শ্রদ্ধা ও সম্মান করে না। যা মুক্তিযুদ্ধের অর্জনকে অবজ্ঞার শামিল। ফেলানী হত্যার বিচার না হলে সীমান্ত হত্যা বন্ধ হবে না। – বিজ্ঞপ্তি