সোহরাব হোসেন, সিংগাইর (মানিকগঞ্জ) : মানিকগঞ্জের সিংগাইর উপজেলার বলধারা ইউনিয়নের পারিল-নওয়াধা গ্রাম থেকে যুবলীগ নেতার তুলে নেয়া মোসলেম নামের মেকানিকের হদিস মিলেছে। শনিবার (৮ অক্টোবর) দুপুরে ওই ভুক্তভোগী থানায় স্বশরীরে হাজির হয়ে বলধারা ইউনিয়ন যুবলীগ সভাপতি মামুনসহ ৪ জনের বিরুদ্ধে থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন।

অন্য অভিযুক্তরা হলেন, সিংগাইর ডিগ্রী কলেজ ছাত্র সংসদের এজিএস মোস্তাফিজুর রহমান মিঠু, হাসান ও আবুল কালাম।

ভুক্তভোগী মেকানিক মোসলেম উদ্দিন গাইবান্ধা সদর থানার ফকিরের বাজার কচুর খামার এলাকার মৃত আকবর আলীর পুত্র। তাকে ১ অক্টোবর পারিল-নওয়াধা মাজার পাড়া গ্রামের মনির হোসেনের বাড়ি থেকে যুবলীগ নেতা মামুনসহ অপর ৩ জনে তুলে নিয়ে যায়। অভিযুক্তদের দাবী নারী সংক্রান্ত ব্যাপারে তাকে আনা হলেও পরে গৃহকর্তা মনিরের কাছে বুঝিয়ে দেয়া হয়।

এদিকে, মোসলেম উদ্দিন ৭ দিন পর প্রকাশ্যে এসে গণমাধ্যমকর্মীদের কাছে ভিন্ন তথ্য প্রকাশ করেছেন।

মোসলেম জানিয়েছেন, ঘটনার দিন তাকে জোরপূর্বক পারিল বাজারের অদূরে ভূমি অফিসের পাশে নিয়ে যায়, পরে সেখান থেকে পার্শ্ববর্তী বায়রা ইউনিয়নের বাইমাইল এলাকায় নিয়ে মেয়ে সংক্রান্ত মিথ্যা অপবাদ দিয়ে মাররধর করে। তার ব্যবহৃত মোবাইল সেট ও ২শ টাকা ছিনিয়ে নেয় এবং হুমকি-ধমকি দিয়ে এলাকাছাড়া করে। আহত অবস্থায় মোসলেম সাভারের এক আত্মীয়র কাছে আশ্রয় নিয়ে ৪ দিন চিকিৎসা নেন। সুস্থ হয়ে বাড়ির মালিক মনির হোসেন ও তার স্ত্রী লাভলী আক্তারের সহায়তায় থানায় অভিযোগ দায়ের করেন। মোসলেম আরো জানান, অভিযুক্ত মিঠু তার স্ত্রীকে মোবাইল ফোনে থানা-পুলিশ না করার জন্য হুমকিও দিচ্ছে।

এ ব্যাপারে অভিযোগের তদন্ত কর্মকর্তা সিংগাইর থানার এসআই মাহফুজ হাসান বলেন, মোসলেমকে মারধর ও হুমকি-ধমকি দিয়ে এলাকাছাড়া করার অভিযোগ পেয়েছি। তদন্ত চলছে বলেও তিনি জানান।