সোহরাব হোসেন, সিংগাইর (মানিকগঞ্জ) : মানিকগঞ্জের সিংগাইর উপজেলার দক্ষিণ ধল্লা অ্যাসপায়ার গার্মেন্টসে নারী শ্রমিকদের সাথে অশ্লীল আচরণ, মাতৃকালীন সময়ে চাকুরিচ্যুত, অসুস্থকালীন সময়ে ছুটি না দিয়ে বেতন কর্তন, বছর পূর্ণ না হলে বোনাস না দেয়াসহ শ্রমিকদের মারধর ও নির্যাতনের প্রতিবাদে গার্মেন্টস ঘেরাও করে বিক্ষোভ মিছিল করেছেন ওই প্রতিষ্ঠানে কর্মরত প্রায় ৫ হাজার শ্রমিক। শনিবার (২৩ এপ্রিল) সকাল ৭টার দিকে এ ঘটনা ঘটে।

বিক্ষোভকারী শ্রমিকরা অভিযোগ করে বলেন, কথায় কথায় মারধর, চাকুরিচ্যুত, বেতন কর্তনসহ বিভিন্নভাবে শ্রমিকদের ওপর নির্যাতন করে থাকেন মালিক পক্ষের আশীর্বাদপুষ্ট কর্মকর্তারা।

তারা বলেন, টানা ৪ দিন নাইট ডিউটি করার পর প্যাকিং ম্যান মাজেদুল অসুস্থ হয়ে পড়লে শুক্রবার দুপুরের পর কর্মস্থল ত্যাগ করেন তিনি। শনিবার সকালে অন্যান্য শ্রমিকদের সাথে অফিসে ঢুকতেই প্যাকিং ইনচার্জ মানিক মিয়া ও আব্দুল আজিজ এবং প্যাকিং ম্যানেজার রেজাউল করিম তাকে গোপন কক্ষে নিয়ে বেধড়ক মারধর করে। এতে সে মারাত্মক আহত হয়ে পড়ে।

এ খবর শ্রমিকদের মধ্যে ছড়িয়ে পড়লে আহত মাজেদুলকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করেন। পরে শ্রমিকরা গার্মেন্ট ঘেরাও করে বিক্ষোভ মিছিল করেন। এক পর্য়ায়ে শ্রমিকরা হেমায়েতপুর-সিংগাইর-মানিকগঞ্জ আঞ্চলিক মহাসড়ক অবরোধ করে রাখে। এ সময় তীব্র যানজটের সৃষ্টি হয়। খবর পেয়ে সিংগাইর থানা পুলিশ বিচারের আশ্বাস দিয়ে শ্রমিকদেরকে রাস্তা থেকে সরিয়ে দেন।

আহত শ্রমিক মাজেদুল, ফাতেমা ও রুপালী অভিযোগ করে বলেন, কনসালট্যান্ট হেলালী যোগদানের পর থেকেই প্রতিষ্ঠানটিতে বিশৃংখল অবস্থার সৃষ্টি হচ্ছে। এখানে ধর্মীয় ও জাতীয় দিবসগুলোতেও ছুটি দেয়া হয় না। গার্মেন্টসের ৫ম তলায় ১৮ নম্বরের লাইন চীফ নারী শ্রমিকদের সাথে অশ্লীল আচরণ করে থাকে।

এ প্রসঙ্গে, অ্যাসপায়ার গার্মেন্টস লিমিটেডের মালিকপক্ষের সাথে কথা বলার জন্য ভেতরে প্রবেশের চেষ্টা করলে সিকিউরিটি গার্ড আজিজুল গেট বন্ধ করে দেয়। তবে মোবাইল ফোনে প্রতিষ্ঠানের জিএম কোহিনুর ইসলাম বলেন, প্যাকিং সুপারভাইজার আজিজ ও শ্রমিক মাজেদুলের মধ্যে মারামারির ঘটনায় দু’জনই আহত। শ্রমিকদের দাবীগুলো ইলিগ্যাল।

এ ব্যাপারে সিংগাইর থানার অফিসার ইনচার্জ সফিকুল ইসলাম মোল্যা বলেন, পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আছে। গার্মেন্টসের আশপাশে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।