বাগমারা (রাজশাহী) প্রতিনিধি : এক বছর আগে ছাড়াছাড়ি হওয়া সাবেক স্বামীর বিরুদ্ধে ১ লাখ টাকা যৌতুক দাবির মামলা করেছেন তালাকপ্রাপ্ত স্ত্রী। নওগাঁর আত্রাই উপজেলার বিলবাড়ী গ্রামের শহিদুল ইসলামের স্ত্রী ছাবিনা বিবি বাদী হয়ে তার সাবেক স্বামী বাগমারার ঝাড়গ্রামের আব্দুল মজিদের বিরুদ্ধে রাজশাহীর বিজ্ঞ আমলী আদালতে মামলাটি করেছেন। এই ঘটনায় এলাকায় ব্যাপক চাঞ্জল্যের সৃষ্টি হয়েছে।

মামলা ও পারিবারি সূত্রে জানা যায়, নওগাঁর আত্রাই উপজেলার শলুয়া ইউনিয়নের গোয়ালবাড়ী গ্রামের মৃত সাখাওয়াত হোসেনের মেয়ে ছাবিনা বিবির প্রায় ২৫ বছর পূর্বে একই ইউনিয়নের বিলবাড়ী গ্রামের মোনাদ্দির ছেলে শহিদুল ইসলামের সঙ্গে বিয়ে হয়।

বিয়ের পর দাম্পত্য জীবনে তাদের সংসারে তিনটি মেয়ে সন্তানের জন্ম হয়। কিন্তু তারপরও প্রেমের টানে সাবিনা বিবি শহিদুলকে তালাক দিয়ে ৩০/০১/২০১৯ইং তারিখে ১ লক্ষ ৪০ হাজার টাকা দেনমোহর ধার্য্য করে বাগমারার ঝিকরা ইউনিয়নের ঝাড়গ্রামের আব্দুস সামাদ মন্ডলের ছেলে আব্দুল মজিদকে বিয়ে করেন।

এরপর কিছুদিন যেতে না যেতেই আব্দুল মজিদের সঙ্গে ছাবিনা বিবির সাংসারিক বনিবনা না হওয়ায় আপোষ মূলে মোহরানা ও যাবতীয় খোরপোষ বাবদ নগদ ৪৫ হাজার টাকা পরিশোধ করে ০৪/১১/২০২০ইং তারিখে কোটে এফিডেভিট করে উভয়ের সম্মতিক্রমে তালাক হয়।

এরপর ছাবিনা বিবি আগের স্বামী শহিদুল ইসলামকে পুরনায় বিয়ে করে তার ঘরে ফিরে যান। বর্তমানে প্রায় এক বছর ধরে ছাবিনা বিবি শহিদুল ইসলামে সঙ্গেই ঘর-সংসার করে আসছেন। অথচ সম্প্রতি ছাবিনা বিবি বাদী হয়ে এক বছর আগে ছাড়াছাড়ি হওয়া সাবেক স্বামী আব্দুল মজিদের বিরুদ্ধে আদালতে ১ লাখ টাকা যৌতুক দাবির মামলা করেছেন।

ছাবিনা বিবি বর্তমানে শহিদুল ইসলামের সঙ্গে ঘর-সংসার করলেও মামলার আরজিতে আব্দুল মজিদের নাম স্বামী হিসাবে উল্লেখ করেছেন এবং ১ লাখ টাকা যৌতুক না দেয়ায় তাকে নির্যাতন করা হয়েছে বলে মামলায় দাবি করা হয়েছে। এদিকে এক বছর আগে ছাড়াছাড়ি হওয়া সাবেক স্বামীর বিরুদ্ধে তালাকপ্রাপ্ত স্ত্রীর এ ধরণের মামলার ঘটনায় এলাকায় ব্যাপক চাঞ্জল্যের সৃষ্টি হয়েছে।