পানির মধ্যে থাকতে না পেরে দুবলার অফিসকেল্লার পুকুর পাড়ে হরিণের আশ্রয় (উপরের ছবিতে)। সাগরের জোয়ারের পানিতে দুবলারচর প্লাবিত (নিচে ডানে) সুন্দরবনের ভেদাখালী খালে নিরাপদ আশ্রয় নিয়েছে ফিশিংবোটবহর (নিচে বামে)। ছবিগুলো রোববার দুপুরে তোলা। ছবি: সংগৃহীত 

শেখ মোহাম্মদ আলী, সুন্দরবন অঞ্চল প্রতিনিধি : বঙ্গোপসাগরে লঘুচাপের কারণে সৃষ্ট পূর্ণীমার জোয়ারে রোববার দুপুরে পূর্ব সুন্দরবনের দুবলারচর প্লাবিত হয়েছে। হরিণসহ বণ্যপ্রাণীর পুকুরপাড়সহ বনের উঁচু স্থানে আশ্রয়। প্রবল বাতাস ও ঢেউয়ে সাগরে টিকতে না পেরে ফিশিংবোটবহর সুন্দরবনসহ উপকূলের বিভিন্ন স্থানে নিরাপদ আশ্রয় নিয়েছে।

দুবলারচরের মানিকখালি খালে আশ্রয় নেওয়া ফিশিংবোট ”এফবি সাব্বির ” এর মাঝি বাগেরহাটের কচুয়া এলাকার আবু হানিফ রবিবার (১৪ আগষ্ট) সকালে মোবাইল ফোনে বলেন, শনিবার দুপুরের পর থেকে সাগরের আবহাওয়া খারাপ হওয়ায় মাছ ধরা বন্ধ রেখে তারা সুন্দরবনের মানিকখালী খালের মধ্যে নিরাপদ আশ্রয় নিয়েছেন।এখানে আরো ফিশিংবোট আশ্রয় নিয়েছে বলে ঐ মাঝি জানান।

বাংলাদেশ ফিশিং ট্রলার মালিক সমিতির সহসভাপতি ও শরণখোলার মতস্য ব্যবসায়ী এম সাইফুল ইসলাম খোকন বলেন, এক সপ্তাহের মধ্যে সাগরের আবহাওয়া দুই দফায় খারাপ হওয়ায় জেলে মৎস্যজীবিরা দুর্ভোগে পড়েছেন।

পূর্ব সুন্দরবনের শরণখোলা রেঞ্জের দুবলা ফরেস্ট টহল ফাঁড়ির ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা দিলীপ মজুমদার রবিবার দুপুরে মোবাইল ফোনে জানান, সাগরের অবস্থা খুবই খারাপ। প্রবল বৃষ্টি ও ঝড়ো হাওয়ায় বড় বড় ঢেউ হচ্ছে। সাগরের জোয়ারে ৩/৪ ফুট উচ্চতার জলোচ্ছাসে দুবলারচর ও সুন্দরবন প্লাবিত হয়েছে।

পানিতে থাকতে না পেরে দুবলার অফিস কেল্লা, মাঝেরকেল্লা , ভেদাখালীর পুকুর পাড়সহ বনের বিভিন্নস্থানে অপেক্ষাকৃত উচু জায়গায় ৩/৪শত হরিণসহ বণ্যপ্রাণী আশ্রয় নিয়েছিলো। ভাটার টানে বনের মধ্যে ঢোকা পানি সাগরে নেমে গেছে। অনেক ফিশিংবোট দুবলারচরের ভেদাখালী, ভাঙাখাল,মানিকখালীসহ বিভিন্ন খালের মধ্যে নিরাপদ আশ্রয় নিয়ে আছে বলে ঐ ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা জানিয়েছেন।