ঘিওর (মানিকগঞ্জ) প্রতিনিধি : মানিকগঞ্জের ঘিওরে সরকারী রাস্তার উপর টয়লেট ও বসত বাড়ির পাকা স্থাপনা তৈরি করার অভিযোগ উঠেছে। এতে বন্ধ রয়েছে এই রাস্তার উন্নয়ন কাজ।

উপজেলার বানিয়াজুরী ইউনিয়নের কাকজোর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পিছনে রাস্তার অংশ জুড়ে এই টয়লেট ও বাড়ির একাংশ পাকা স্থাপনা। এতে এলাকাবাসীর চলাচল ও কোমলমতি শিক্ষার্থীদের ক্লাস করা বিঘ্নিত হওয়ার পাশাপাশি আগন্তুক ও পথচারীদের কাছে দৃষ্টিকটু ব্যাপার হয়ে দাাঁড়িয়েছে।

রাস্তার ওপর থেকে টয়লেট অপসারনে জন্য স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাসহ বিভিন্ন দপ্তরে এলাকাবাসী গণস্বাক্ষর সম্বলিত লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন।

অভিযোগে জানা যায়, উপজেলার বানিয়াাজুরী ইউনিয়নের কাকজোর- তাড়াইল ভায়া নয়াচর সড়কের কাকজোর (সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পেছনে) এলাকার সরকারি রাস্তার উপরে এই গ্রামের প্রভাবশালী ঈমান আলী অবৈধভাবে পাকা টয়লেট ও স্থাপনা নির্মাণ করছে। যার কারণে ছোট রাস্তা দিয়ে সাধারণ মানুষের চলাচল ও যানবাহন চলাচল বাধাগ্রস্ত হচ্ছে। জনগুরুত্বপূর্ণ এই রাস্তা সম্প্রতি সংষ্কার কাজ শুরু হয়। কিন্তু রাস্তার ওপর টয়লেট অপসারন না করায় বন্ধ রয়েছে রাস্তা সংস্কার কাজ।

এলাকাবাসীর অভিযোগ, জনপ্রতিনিধিরা বিভিন্ন সময়ে নানা প্রতিশ্রুতি দিলেও এখন পর্যন্ত রাস্তাটি দখলমুক্ত করে তা সংস্কার করা সম্ভব হয়নি। নানা দূর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে ওই রাস্তায় চলাচলকারী ৩টি গ্রামের গ্রামের প্রায় দুই সহস্রাধীক পরিবারের।

এলাকাবাসী জানান, এলাকার উন্নয়নে এই রাস্তাটি বর্তমান চেয়াম্যান এস আর আনসারী বিল্টু নির্মাণ কাজ শুরু করেন। তখন চেয়ারম্যানের উপস্থিতিতে এলকাবাসীর সামনে ঈমান আলী টয়লেটটি ভেঙ্গে দেওয়ার অঙ্গীকার করেন। কিন্তু এখন সে এলাকার কয়েকজন চিহ্নিত কুচুক্রি মহলের মদদে টয়লেটটি ভেঙ্গে দিতে অস্বীকার করছে। এতে রাস্তার নির্মাণ কাজ বন্ধ হয়ে আছে । এ নিয়ে এলাকাবাসীর সাথে একাধিকবার ঝগড়া ও মারামারির ঘটনা ঘটেছে। এতে এলাকাবাসী দিন দিন ক্ষুব্ধ হয়ে উঠছে।

সরজমিন বুধবার দুপুরে কাকজোর গ্রামে গিয়ে এ অভিযোগের সত্যতা মিলে। এ সময় এলাকার সাইদুর, মামুন, শফিকুল ও রউফ বিশ্বাস বলেন, সরকারী রাস্তার উপর দিয়ে অবৈধভাবে টয়লেট তৈরি করার ফলে যানবাহন চলাচলে প্রতিবন্ধকতার সৃষ্টি হচ্ছে। এছাড়াও স্কুলের শিক্ষার্থীদের দূর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে।

স্থানীয় ইউপি সদস্য মনিরুল ইসলাম বলেন, এই এলাকার রাস্তাটির অবস্থার খুব খারাপ। সম্প্রতি এই রাস্তার সংষ্কার কাজ শুরু হলেও রাস্তার ওপর পাকা টয়লেট থাকায় বন্ধ রয়েছে রাস্তার উন্নয়ন কাজ। টয়লেট অপসরণের জন্য প্রশাসনের নিকট জরুরী হস্তক্ষেপ কামনা করছি।

এ বিষয়ে ঈমান আলী বলেন, বিষয়টি নিয়ে একাধিকবার স্থানীয়ভাবে বসা হয়েছে। টয়লেটটি আমার জায়গায় স্থাপন করেছি। একটু অংশ সরকারী জায়গায় পরেছে। চেয়ারম্যানের সাথে কথা বলে বিষয়টি সমাধান করবো।

বানিয়াজুরী ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান এস আর আনসারী বিল্টু বলেন, এলাকার উন্নয়নের স্বার্থে জনগুরত্বিপূর্ণ এই রাস্তাটি উন্নয়ন কাজ বাধাগ্রস্থ হচ্ছে রাস্তার একটা অংশ জুড়ে টয়লেট নির্মানের ফলে। রাস্তার কাজ শুরুর আগে তিনি আমার কাছে এলাকাবাসীর সামনে টয়লেট অপসারন করার কথা দিলেও এখন তা অপসারন করতে অস্বীকার করছেন। এলাকাবসীর লিখিত অভিযোগ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মহোদয় তদন্ত করে দেখছেন।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা হামিদুর রহমান বলেন, সরকারি রাস্তা দখলমুক্ত করতে তাকে ইতিমধ্যে নোটিশ প্রদান করা হয়েছে। কেউ যদি অবৈধভাবে রাস্তার জায়গা দখল করে থাকে তাহলে অবশ্যই তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। আমি‌ সরেজমিন ওই গ্রামে গিয়ে জমি পরিমাপ করে বিষয়টি সমাধানের চেষ্টা করবো।