এম এম হারুন আল রশীদ হীরা, নওগাঁ : নওগাঁ সদর উপজেলার শৈলগাছী ইউনিয়ন পরিষদে (ইউপি) চেয়ারমান পদে আওয়ামী লীগ থেকে সমর্থন না পেয়ে ‘বিদ্রোহী প্রার্থী’ হিসেবে নির্বাচনে অংশ নেওয়ায় শৈলগাছী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি আবদুল গফুরকে বহিষ্কার করা হয়েছে। শুক্রবার সকালে সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মাহবুবুল হক কমল এ তথ্য নিশ্চিত করেন।

মাহবুবুল হক বলেন, দলীয় শৃঙ্খলাভঙ্গের দায়ে শৈলগাছী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুল গফুরকে বহিস্কার করে ওই ইউনিয়নের ১ নং সহ-সভাপতি সাজ্জাদ হোসেনকে সভাপতির দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে।

বৃহস্পতিবার বিকেলে শৈলগাছী ইউনিয়ন পরিষদে অনুষ্ঠিত এক সভায় শৈলগাছী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের কমিটির নেতাদের বিষয়টি জানিয়ে দেওয়া হয়। আজকের মধ্যেই চিঠি দিয়ে এই সিদ্ধান্তের কথা আব্দুল গফুরকে জানিয়ে দেওয়া হবে।’

দলীয় সূত্রে জানা যায়, দ্বিতীয় দফা ইউপি নির্বাচনে নওগাঁর শৈলগাছী ইউপিতে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসেবে মনোনয়ন পেয়েছেন শৈলগাছী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আবদুর রাজ্জাক। সে অনুযায়ী উপজেলা নির্বাচন কার্যালয়ে মনোনয়পত্র জমা দেন।

দলীয় মনোনয়ন চেয়ে না পাওয়ায় শৈলগাছী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি ও শৈলগাছী ইউপির বর্তমান চেয়ারম্যান আবদুল গফুর স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে মনোনয়নপত্র দাখিল করেন। এরপর গত ২৬ অক্টোবর মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের শেষ দিনেও মনোনয়নপত্র প্রহ্যাহার না করায় কেন্দ্রীয় নির্দেশনা অনুযায়ী আবদুল গফুরকে বহিষ্কার করে উপজেলা আওয়ামী লীগ।

বহিষ্কারের বিষয়ে জানতে শৈলগাছী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি সাজ্জাদ হোসেন বলেন, ‘উপজেলা আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ সভা আহবান করে আবদুল গফুরকে বহিষ্কার করে আমাকে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতির দায়িত্ব দিয়েছেন’।

সদর উপজেলা নির্বাচন কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, আবদুর রাজ্জাক ও আবদুল গফুর ছাড়াও শৈলগাছী ইউপিতে চেয়ারম্যান পদে স্বতন্ত্র হিসেবে প্রার্থী হয়েছেন মোয়াজ্জেম হোসেন, আফতাব হোসেন ও মোসলেম উদ্দিন।

বাংলাদেশ ইসলামী শাসনতন্ত্র আন্দোলনের মনোনীত প্রার্থী হিসেবে চেয়ারম্যান প্রার্থী হয়েছেন শাহিন উদ্দিন। আগামী ১১ নভেম্বর দ্বিতীয় দফা ইউপি নির্বাচনে নওগাঁ সদর উপজেলার ১২টি ইউপি ও রাণীনগর উপজেলার ৮টি ইউপিতে ভোট অনুষ্ঠিত হবে।