শরীয়তপুর প্রতিনিধি : শরীয়তপুর সদর উপজেলার চিতলীয়া ইউনিয়নে আলী হোসেন সরদার (৫৫) নামে এক বৃদ্ধকে ধরে নিয়ে কুপিয়ে জখম করার অভিযোগ উঠেছে প্রতিপক্ষের চেয়ারম্যান প্রার্থীর সমর্থকদের বিরুদ্ধে। শনিবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে ইউনিয়নের টুমচর নতুন রাস্তায় এই হামলার ঘটনা ঘটে। স্থানীয় লোকজন তাকে উদ্ধার করে শরীয়তপুর সদর হাসপাতালে নিয়ে ভর্তি করেন।

পরে আশঙ্কাজনক অবস্থায় কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করেন। কৃষক আলী হোসেন সরদার ইউনিয়নের মজুমদার কান্দী গ্রামের মৃত নোয়াব আলী সরদারের ছেলে। সে চিতলিয়া ইউনিয়ন পরিষদের আসন্ন নির্বাচনে চেয়ারম্যান প্রার্থী মাস্টার হারুন অর রশিদ হাওলাদারের সমর্থক বলে জানাগেছে। ঘটনার সাথে জড়িত সন্দেহে একজনকে আটক করেছে পুলিশ।

পালং থানা ও স্থানীয় সুত্রে জানা গেছে, আগামী ১৫ জুন শরীয়তপুর সদরের চিতলিয়া ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। নির্বাচনে নির্বাচনে বর্তমান চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামীলীগের সদস্য আব্দুস সালাম হাওলাদার এবং সদর উপজেলা আওয়ামীলেীগের সহ-সভাপতি মাষ্টার হারুন অর রশিদ হাওলাদার নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। এই দুই প্রার্থীর মধ্যে আধিপত্য নিয়ে দীর্ঘদিন যাবত বিরোধ চলে আসছে। গত ৩ মে মজুমদার কান্দী গ্রামে দুই পক্ষের সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষে আব্দুস সালাম হাওলাদারের সমর্থক কুদ্দুছ বেপারী নিহত হন। হত্যা মামলায় আলী হোসেন সরদারকে আসামী করা হয়।

হত্যার ঘটনার পর চেয়ারম্যান সালাম হাওলাদারের সমর্থকরা চেয়ারম্যান প্রার্থী হারুন অর রশিদ হাওলাদারের সমর্থকদের বাড়িঘরে হামলা ও লুটপাট করে বলে অভিযোগ উঠে। সেই সময় আলী হোসেন সরদারের বাড়িতেও হামলা ও লুটপাট করা হয় বলেও ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের অভিযোগ। তখন পুলিশ ও প্রতিপক্ষের হাত থেকে রক্ষা পেতে আলী হোসেন সরদার নিজ বাড়ি ছেড়ে পার্শ্ববর্তী টুমচর এলাকায় এক আত্মীয়ের বাড়িতে থাকতেন।

চেয়ারম্যান প্রার্থী হারুন অর রশিদ হাওলাদার বলেন, আলী হোসেন সরদার আমার সমর্থক। সেই কারণেই নির্বাচনের পূর্ব মূহুর্তে তাকে হত্যার চেষ্টা করেছে প্রতিপক্ষ। সে এখন গুরুত্বর আহত অবস্থায় ঢাকা মেডিকেল কলেজে চিকিৎসাধীন রয়েছে।

এই বিষয়ে চেয়ারম্যান আব্দুস সালাম হাওলাদারের ছোট ভাই শাখাওয়াত হোসেন হাওলাদার বলেন, আলী হোসেন সরদার একজন অসুস্থ বৃদ্ধ। সে আমাদের কোন প্রতিপক্ষ না। এইবার চিতলিয়া ইউপি নির্বাচনে আমাদের জয় নিশ্চিত ভেবে সুকৌশলে প্রতিপক্ষের লোকজন এই ঘটনা ঘটিয়েছে। আমাদের জনপ্রিয়তা নষ্টসহ নির্বাচন বানচাল করতে চেষ্টা করছে তারা। আমাদের কোন কর্মী এই ঘটনার সাথে জড়িত না।

পালং মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো: আক্তার হোসেন বলেন, চিতলিয়ায় আলী হোসেন সরদার নামে এক লোকের ওপর হামলা হয়েছে। ঘটনাস্থলে পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। ঘটনার সাথে জড়িত সন্দেহে একজনকে আটক করা হয়েছে। মামলার প্রস্তুতি চলছে।