লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি : লক্ষ্মীপুরে সন্ত্রাস বিরোধী আইনের মামলায় জেলা জামায়াতের আমির রুহুল আমিন সহ ৩ জনের জামিন নামঞ্জুর করে কারাগারে পাঠিয়েছে আদালত। বৃহস্পতিবার বেলা সাড়ে ১০ টার দিকে জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক মো. রহিবুল ইসলাম এ আদেশ দেন।

জামিন নামঞ্জুর হওয়া অন্যরা হলেন-জেলা জামায়াতের সাবেক সেক্রেটারি ও বর্তমানে নায়েবে আমীর এ আর হাফিজ উল্যাহ ও কর্মী নুরুল হুদা। এ ঘটনায় জেলা জামায়াতের নেতৃবৃন্দ তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে বলেন, অনতিবিলম্বে জেলা জামায়াতের আমীর, নায়েবে আমীরসহ তিন শীর্ষ নেতার মুক্তির দাবী জানান।

লক্ষ্মীপুর জজ আদালতের সরকারি কৌশুলী অ্যাডভোকেট জসীম উদ্দিন বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, চলতি বছরের ২৫ সেপ্টেম্বর লক্ষ্মীপুর সদর থানায় সন্ত্রাস বিরোধী আইনে ৫ জনের নামে মামলা করে পুলিশ। আদালতে হাজির হয়ে আসামীরা জামিন আবেদন করলে আদালতে তা নামঞ্জুর করে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন। এর আগে বিবাদীরা হাইকোর্ট থেকে ৪ সপ্তাহের জামিনে ছিলেন।

আসামী পক্ষের আইনজীবি মহসিন কবির মুরাদ বলেন, এটি একটি সাজানো মামলা। এ মামলায় হাইকোর্ট থেকে জেলা জামায়াতের আমীর মাষ্টার রুহুল আমিন ভূইয়া, নায়েবে আমীর এ আর হাফিজ উল্যাহ ও নুরুল হুদা হাই কোর্ট থেকে নেয়া ৪ সপ্তাহের জামিনে ছিলেন। বৃহস্পতিবার নিম্ম আদালতে আত্নসমর্পন করলে আদালত তাদের জামিন নামঞ্জুর করে জেল হাজতে পাঠায়। এ বিষয়ে উচ্চ আদালতে যাওয়ার কথা বলেন তিনি।

এদিকে জামায়াতের পক্ষ থেকে জানান হয়, গত ২৫/৯/২০২২ তারিখ দুপুরে জেলা শহরের দক্ষিণ তেমুহানী এলাকায় জামায়াতের প্রকাশনা অফিসে পুলিশ হানা দেয় এবং অফিসে থাকা হাজির হাট মাদ্রাসার অধ্যাপক মাওলানা আবদুর রহমান ও কম্পিউটার অপারেটর সুমন কে আটক করে। পরবর্তীতে অফিসে থাকা কুরআন হাদিসে সহ বিপুল পরিমাণ ইসলামি বই পত্র নিয়ে যায় এবং সদর মডেল থানায় এ সন্ত্রাস বিরোধী আইনে একটি মামলা দায়ের করা হয়। এস আই হাবিবুর রহমান বাদি হয়ে জামায়াতের জেলা আমীর, সেক্রেটারী সহ ৫ জনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাত আরো ৩০/৪০ জনকে বিবাদী করা হয়।

জেলা জামায়াতের নিন্দা মুক্তি দাবি

দলীয় নেতাদের গ্রেফতার এর নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে তাদের অবিলম্বে মুক্তি দাবী করেছেন জেলা জামায়াতের ভারপ্রাপ্ত আমীর এডভোকেট নজির আহমেদ এডভোকেট মহসিন কবির মুরাদ সহ নেতৃবৃন্দ। তারা বলেন সম্পুর্ন অন্যায় ভাবে বানোয়াট মিথ্যা মামলা সাজানোর মাধ্যমে জামায়াতের নেতা কর্মীদের উপর জুলুম নির্যাতন চালিয়ে তাদের স্তব্দ করার ষড়যন্ত্র সফল হবেনা। অবিলম্বে গ্রেফতারকৃত নেতা কর্মীদের মুক্তি দিয়ে ষড়যন্ত্রের মামলা বাতিল করতে হবে।