রামপাল (বাগেরহাট) প্রতিনিধি : রামপালের জিয়লমারী গ্রামের যুবদল নেতা রেজাউল কবিরের বৈধভাবে লিজ চুক্তিতে নেওয়া মৎস্যঘেরটি জোরপূর্বক দখলে নেওয়ার চেষ্টার অভিযোগ পাওয়া গেছে। দখলবাজরা ওই সময়ে প্রায় আড়াই লক্ষ টাকার মাছ ধরে নিয়ে যায় বলে অভিযোগ করেন ওই যুবদল নেতা।

স্থানীয় ভোজপাতিয়া ইউনিয়ন পরিষদে ও রামপাল থানায় লিখিত অভিযোগ দেওয়ার পরও কোন প্রতিকার পাননি তিনি।

জানা গেছে, উপজেলার জিয়লমারী গ্রামের তৈয়ব আলীর পুত্র রামপাল উপজেলা যুবদল নেতা রেজাউল কবির মোংলা এলাকার মৃত মোনাফছেরের স্ত্রী হাবিবুন নেছার ৫ একর জমি ২০১৭ থেকে লিজ চুক্তিতে ঘের করে আসছেন। উপজেলার বেতকাটা গ্রামের রাজু মৃধা, আবিদ হাসান জাহিদ, মাহামুদ শেখ ও মফিজ শেখ ওই ঘেরটি জোরপূর্বক দখলে নিতে বিভিন্নভাবে চাপ প্রয়োগ করে আসছিলেন।

যুবদল নেতা রেজাউল কবির জানান, তিনি জেএল ১৫৬ নং মৌজার ১৭ নং খতিয়ানের ১৮৯, ১৫০, ১৮৮ ১৭৭ দাগের ৫ একর জমি শান্তিপূর্ণভাবে ভোগদখলে রেখে মাছ চাষ করে আসছেন। রাজনৈতিক কারণে প্রতিপক্ষরা তাকে ওই ঘের থেকে উচ্ছেদের জন্য নানাভাবে চাপ প্রয়োগ করে আসছেন। গত ৩০-০৫-২০২২ তারিখ প্রতিপক্ষরা চারো পেতে মাছ ধরা শুরু করেন।

এ ঘটনায় রামপাল থানায় একটি শালিস বৈঠকে প্রতিপক্ষকে রেজাউল কবির এর মৎস্যঘেরটিতে যেতে নিষেধ করা হয়। এরপর ও কোন প্রতিকার পাচ্ছেন না রেজাউল কবির। তিনি জেলা পুলিশ সুপারসহ উর্ধতন কর্তৃপক্ষের কাছে প্রতিকার ও জানমালের নিরাপত্তা চেয়েছেন ভুক্তভোগী রেজাউল কবির।

এ বিষয়ে প্রতিপক্ষের রাজু মৃধা, আবিদ হাসান জাহিদ ও মফিজ শেখের কাছে জানতে চাইলে তারা ওই মৎস্যঘেরের জমি দাবী করেন। তবে মাছ ধরার বিষয়টি অস্বীকার করেন।