এম. মনিরুজ্জামান, রাজবাড়ী প্রতিনিধি : ফরিদপুরে বিএনপির অবস্থান কর্মসূচিতে হামলার ঘটনায় মামলা দায়ের করে পুলিশ। ওই মামলায় রাজবাড়ী জেলা বিএনপির ৫ জন নেতাকর্মী জামিন লাভ করেছেন।

রোববার ফরিদপুর আদালত থেকে রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ বালিয়াঙ্গা পৌরসভার মাল ফকিরের ছেলে মোঃ সাজাহান (৩৮), পাংশার কুলটিয়া গ্রামের আঃ কাদের মোলার ছেলে মোঃ শিপন ইসলাম (২০), নুরপুর গ্রামের মৃত হাবীবুর রহমান চৌধুরীর ছেলে রাজবাড়ী পৌর বিএনপির আহবায়ক মাহাবুব চৌধুরী দুলাল (৬৭), গোপালপুর গ্রামের আঃ ওহাব মোল্যার ছেলে ও জেলা ছাত্রদলের সদস্য সচিব মোঃ শাহিনুর রহমান (৩৪), চর খানখানাপুর গ্রামের মোঃ সাজাহান শেখের ছেলে মোঃ সৌরভ শেখ (১৮) জামিন লাভ করেন। সন্ধ্যায় ফরিদপুর জেলা কারাগার থেকে বের হলে তাদেরকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানানো হয়।

রাজবাড়ী জেলা বিএনপির সাবেক সাধারণ সম্পাদক হারুন-অর রশিদ হারুন সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

জানা গেছে, গত ১১ জানুয়ারী ফরিদপুরের বিভাগীয় সমাবেশ অম্বিকা ময়দানের সামনে আইন শৃংখলা রক্ষা ডিউটি করাকালীন জাতীয়তাবাদী দল বিএনপির কেন্দ্রীয় ঘোষিত কর্মসূচী চলাকালে সকাল সাড়ে ১১ টা সময় ফরিদপুর জেলা ও ফরিদপুর মহানগর বিএনপির উদ্যোগে ফরিদপুর শহরস্থ ঝিলটুলী অম্বিকা ময়দানে অবস্থান কর্মসূচী শুরু হয়।

ওই দিন দুপুর পৌনে ১টার সময় অম্বিকা ময়দানের সামনে দিয়ে ফরিদপুর জেলা যুবলীগ, ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা মিছিল সহকারে যাওয়া কালীন বিএনপির নেতাকর্মীদের সাথে সংঘর্ষ বাঁধে। উভয় পক্ষ একে অপরের প্রতি ইট-পাটকেল, ককটেল নিক্ষেপ করে অস্থিতিশীল পরিস্থিতি সৃষ্টি করে এবং জনসাধারণ ও রাস্তায় যানবাহন চলাচলে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করে।

বিষয়টি বেতার যন্ত্রের মাধ্যমে উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সার্বিক বিষয় অবহিত করে জনসাধারণের স্বাভাবিক জীবনযাত্রা যাহাতে ব্যাহত না হয় এবং আইন শৃঙ্খলা রক্ষার জন্য পক্ষদ্বয়ের উচ্ছৃঙ্খল আচরণ নিয়ন্ত্রণ ও প্রতিবন্ধকতা দূর করার চেষ্টা করে। কিন্তু পুলিশের উপর ক্ষিপ্ত হয়। হামলাকারীদেরকে নিবৃত করার চেষ্টা করলে অর্তকিত ভাবে পুলিশের উপর আক্রমন করে ইট পাটকেল নিক্ষেপ করে।

এ সময় পুলিশ নিজেদের জানমাল, সরকারী সম্পদ রক্ষাসহ আইনশৃংখলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করার জন্য শর্টগানের ১৪ রাউন্ড ফাঁকা গুলি করা হয়। এ সংক্রান্ত ফরিদপুর কোতোয়ালি থানার মামলায় এই নেতাদের গ্রেপ্তার করা হয়েছিল।