এম. মনিরুজ্জামান, রাজবাড়ী প্রতিনিধি : রাজবাড়ীর সদর উপজেলার অস্তগত পদ্মা নদীতে ভ্রাম্যমান আদালত অভিযান চালিয়ে অবৈধভাবে বালি উত্তোলনের দায়ে একজনকে ২ লক্ষ টাকা জরিমানা করেছেন। একই সাথে বালু উত্তোলন কাজে ব্যবহৃত ড্রেজার অকেজো করে বালু উত্তোলন বন্ধ করা হয়।

বৃহস্পতিবার (৭ অক্টোবর) দুপুরে সদর উপজেলার উড়াকান্দা এলাকায় ড্রেজার দিয়ে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন করায় ড্রেজার মালিক মো. তাজুল খানকে জরিমানা করা হয়।

সূত্রমতে জানাযায়, রাজবাড়ী জেলার জেলা প্রশাসক ও জেলা ম্যাজিস্ট্রেট জনাব দিলসাদ বেগম এবং অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট জনাব সূবর্ণা রাণী সাহা এর নির্দেশনায় বৃহস্পতিবার বেলা ১১.০০ হতে বিকেল ০৩.০০ পর্যন্ত অবৈধভাবে বালু উত্তোলনের বিরুদ্ধে মোবাইল কোর্ট পরিচালিত হয়। মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করেন জেলা প্রশাসনের এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট জনাব হাবিবুল্লাহ।

ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা কারি জেলা প্রশাসনের এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট হাবিবুল্লাহ বলেন, পদ্মা নদীতে অবৈধভাবে বালি উত্তোলনের দায়ে বালিমহল ও মাটি ব্যবস্থাপনা আইন-২০১০ এর ১৫/১ ধারায় একজনকে ২ লক্ষ টাকা জরিমানা বা অর্থদন্ড করা হয়েছে। এ অভিযান অব্যাহত থাকবে বলে তিনি উল্লেখ করেন।

উল্লেখ্য, রাজবাড়ীর উপর দিয়ে প্রবাহিত পদ্মা নদীর ভাঙন ঠেকাতে ইতিমধ্যে স্থায়ী সমাধান প্রকল্পের ৩৭৬ কোটি টাকার কাজ। কাজ শেষ হওয়ার পর থেকেই পুনরায় ভাঙন শুরু হয়ে তা অব্যাহত রয়েছে। স্থায়ীভাবে কাজের মান ও অবৈধ বালু উত্তোলনকে দায়ী করে আসছিলো। গতকাল বধবার সকালে পানি সম্পদ মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী জাহিদ ফারুক এমপি রাজবাড়ীর পদ্মা নদীর ভাঙন কবলিত এলাকা পরিদর্শন করেন।

এসময় তিনি বলেন, নদী থেকে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন বন্ধ করতে না পারলে লোহা দিয়ে বাঁধ নির্মাণ করলেও টিকবে না। ফলে অবৈধ বালু উত্তোলন বন্ধ করতেই হবে।

অভিযান পরিচালনায় সহযোগিতা করেন রাজবাড়ী সদর থানার এস আই শহিদুল ইসলাম ও তার সঙ্গীয় ফোর্স।