বগুড়া অফিস : বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশনের কেন্দ্রীয় সভাপতি ও সাবেক মন্ত্রী শাহজাহান খান এমপি বলেছেন, অনেকে মনে করেন চালকের শাস্তি বাড়লে সড়ক দূর্ঘটনা কমবে। কিন্তু এটা ঠিক নয়। শুধু চালকের কারনে নয়, ১০৫টি কারণে সড়ক দূর্ঘটনা ঘটে। তাই শ্রমিকদের কল্যাণে সড়ক আইন সংশোধন করছে সরকার। এ জন্য ১১১টি সুপারিশ করা হয়েছে।

তিনি বলেন, যারা যাত্রীদেরকে পরিবহন সেবা দেয় ইলিয়াস কান্চন তারেদকে খুনী ও ঘাতক বলেন। তারা নিরাপদ সড়কের নামে শ্রমিকদের সব দোষ দেন। তাই সড়ক দূর্ঘটনারোধে চালকদের সাবধানে ও আইন মেনে চলতে হবে।

শাহজাহান খান বৃহস্পতিবার বগুড়া জেলা মোটর শ্রমিক ইউনয়নের ত্রিবার্ষিক সাধারণ সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন। প্রধান বক্তা সড়ক পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক ওসমান আলী বলেন, সড়ক দূর্ঘটনার পর যারা তদন্ত ছাড়াই শ্রমিকদের হত্যা করে তাদেরকে বিশেষ আদালতে বিচার করতে হবে।

তিনি বগুড়া মোটর শ্রমিক ইউনিয়নের নির্বাচন পরিচালনায় ফেডারেশনের রাজশাহী বিভাগীয় কমিটির ভারপ্রাপ্ত সভাপতি রফিকুল ইসলাম রফিককে চেয়ারম্যান হিসেবে ঘোষণা করেন। সেই সাথে তিনি বগুড়া জিলা স্কুল মাঠে অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন উপহার দিতে শ্রমিকদের নিকট প্রতিশ্রুতি দেন।

১০ বছর পর কামরুল আলম বাজু স্মৃতি সংসদের আন্দোলনের মুখে শহরের ভবের বাজার ট্রাক টার্মিনালে ওই সাধারন সভা অনুষ্ঠিত হয়। ভারপ্রাপ্ত সভাপতি আব্দুল হামিদ মিটুলের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত ওই সভায় আয় ব্যয়ের রিপোর্ট পেশ করেন সাধারণ সম্পাদক সামছুদ্দিন শেখ হেলাল।

রিপোর্টের আয় ব্যয়ের অসঙ্গতি নিয়ে প্রশ্ন তোলেন সদস্যরা। এ সময় সেখানে ব্যাপক হৈ চৈ শুরু হয়।

পরে চার্টার্ট অ্যাকাউন্ট্যান্ট প্রতিষ্ঠান দ্বারা আয়-ব্যয় অডিট করার প্রতিশ্রুতি দিলে পরিস্থিতি শান্ত হয়।

সভায় আরো বক্তব্য দেন ফেডারেশনের রাজশাহী বিভাগীয় কমিটির ভারপ্রাপ্ত সভাপতি রফিকুল ইসলাম রফিক, রংপুর জেলা মোটর শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি আব্দুল মজিদ, শ্রম অধিদপ্তরের রাজশাহী কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক রাজিয়া সুলতানা, শ্রম কর্মকর্তা মিজানুর রহমান, শ্রমিক নেতা আমিনুল ইসলাম, সৈয়দ কবির আহমেদ মিঠু, আব্দুল মান্নান মন্ডল প্রমুখ।

তবে বাজু স্মৃতি সংসদের নেতৃবৃন্দকে বক্তব্য দানে বাধা প্রদানের অভিযোগ উঠেছে। সভায় প্রায় ১০ হাজার শ্রমিক অংশ নেন। সভার কারণে সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত বগুড়ার যানবাহন চলাচল বন্ধ ছিল। সেই সাথে ব্যাপক নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণ করে প্রশাসন।