ময়মনসিংহ অফিস : পরিপত্র সংশোধন ও চুক্তিপত্র বাতিল করে সাড়ে চার হাজার ইউনিয়ন ডিজিটাল সেন্টার কর্মকর্তাদেরকে ১৯৭২ সালের পর থেকে সরকারি প্রকল্পের নিয়মানুসারে বেতন স্কেল ও রাজস্বখাতে স্থানান্তরের নীতিমালার দাবিতে প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনায় ময়মনসিংহে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে।

শনিবার সকাল ১১টা থেকে বেলা একটা পর্যন্ত ময়মনসিংহ বিভাগীয় কমিশনারের কার্যালয়ের সামনে বঙ্গবন্ধু পরিষদ ইউনিয়ন ডিজিটাল সেন্টার বিভাগীয় শাখার উদ্যোগে এই মানববন্ধন কর্মসুচী পালিত হয়।

দুই ঘণ্টাব্যাপী কর্মসুচী চলাকালে বক্তব্য রাখেন বঙ্গবন্ধু পরিষদ ইউনিয়ন ডিজিটাল সেন্টার কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদের আহবায়ক শেখ আব্দুল্লাহ আল আমিন, সদস্য সচিব মো. এমদাদুল হক, ময়মনসিংহ জেলা সভাপতি ও ইউনিয়ন ডিজিটাল সেন্টার শ্রমিকলীগ কেন্দ্রীয় কমিটির কার্যকরী সভাপতি মো. নজরুল ইসলাম, বঙ্গবন্ধু পরিষদ ইউনিয়ন ডিজিটাল সেন্টার কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদের উপদেষ্টা মন্ডলীর সদস্য মো. হাসিম উদ্দিন, বিভাগীয় সভাপতি আল আমিন, সাধারণ সম্পাদক মীর মাহবুবুর রহমান হৃদয়সহ জেলা নেতৃবৃন্দ।

বক্তারা জানান, ২০১০ সালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সারাদেশে চার হাজার ৫০০ ইউনিয়ন ডিজিটাল সেন্টার প্রতিষ্ঠা করেন। ইউনিয়ন পরিষদের দাপ্তরিক কাজ করে সেন্টারের কর্মকর্তারা জীবিকা নির্বাহ করে আসছিলেন।

২০১৬ সালে ইউনিয়ন পরিষদে সরকারিভাবে হিসাব ‘সহকারী কাম-কম্পিউটার অপারেটর’ পদ সৃষ্টি করে নিয়োগ সম্পন্ন করায় ইউনিয়ন ডিজিটাল সেন্টারের কর্মকর্তারা বেকার হয়ে পড়েন।

বর্তমানে ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানগণ নিজেদের লোক দিয়ে কাজ করায় অনেক সেন্টারের কর্মকর্তারা কাজ করার সুযোগ পাচ্ছেন না।

এ ব্যাপারে সুনির্দিষ্ট কোনো নীতিমালা না থাকায় ৮০ থেকে ৯০ ভাগ ইউনিয়ন ডিজিটাল সেন্টারে এই সমস্যার সৃষ্টি হয়েছে।

এ জন্য পরিপত্র সংশোধন ও চুক্তিপত্র বাতিল করে সাড়ে চার হাজার ইউনিয়ন ডিজিটাল সেন্টার কর্মকর্তাদেরকে ১৯৭২ সালের পর থেকে সরকারি প্রকল্পের নিয়মানুসারে বেতন স্কেল ও রাজস্বখাতে স্থানান্তরের নীতিমালার দাবিতে প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করেন।