এম. মনিরুজ্জামান, রাজবাড়ী প্রতিনিধি : দশম শ্রেণীতে পডুয়া ছেলেকে মোটরসাইকেল কিনে না দেয়ায় মাকে মারপিট করার পাশাপাশি মায়ের ৩ ভরি স্বার্ণালংকার ও ৭৬ হাজার নগদ টাকা চুরির ঘটনা ঘটেছে। ওই ঘটনায় ছেলে মোঃ ফেরদৌসের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছে মা মোছাঃ শুকলা বেগম।

মামলার প্রেক্ষিতে বৃহস্পতিবার রাতে পুলিশ ছেলেকে গ্রেপ্তার করে। শুক্রবার দুপুরে তাকে আদালতে পাঠায়। ফেরদৌস রাজবাড়ী সদর উপজেলার খানগঞ্জ ইউনিয়নের হাটবাড়ীয়া গ্রামের হারুন অর রশিদ।

মামলার বাদী জানিয়েছেন, ফেরদৌস একজন মাদকসেবী ও জুয়ারু। সে একটি মোটরসাইকেল কেনার জন্য তাদের চাপ দিয়ে আসছিলো। গত ৩ জানুয়ারী সকাল ১০টার দিকে তিনি তার বসত ঘরের খাটে ঘুমিয়েছিলেন। সে সময় ওই ঘরে ফোরদৌস প্রবেশ করে এবং তোষকের নিচ থেকে চাবি নিয়ে শোকেসের ড্রয়ারে থাকা ৩ ভরি স্বার্ণালংকার ও নগদ ৭৬ হাজার টাকা নিয়ে নেয়।

ওই সময় শব্দে মায়ের ঘুম ভেঙ্গে গেলে সে ফেরদৌসকে দেখতে পান। তিনি তাকে বাধা দিলে ফেরদৌস তাকে ধাক্কা দিয়ে মাটিতে ফেলে দেয়। এতে তিনি জ্ঞান হারান। ওই সময় সে স্বার্ণালংকার ও টাকা নিয়ে পালিয়ে যায়। যে কারণে তিনি রাজবাড়ীর ১ নং আমলী আদালতে ফেরদৌসের বিরুদ্ধে একটি মামলা দায়ের করেন।

রাজবাড়ী থানার এসআই মেজবা উদ্দিন জানিয়েছেন, আদালতের নির্দেশে মামলাটি থানা রেকর্ড করা হয়েছে। একই সাথে আসামি ফেরদৌসকে গ্রেপ্তার করে আদালতে পাঠানো হয়েছে।

উল্লেখ্য, বর্তমানে রাজবাড়ী জেলা মাদকে ভাসছে। করোনায় স্কুল-কলেজ বন্ধ, পড়ালেখার চাপ না থাকায় মাদক ব্যবসায়ীদের লোভনীয় অফারে কিশোর স্কুল-পড়ুয়া শিক্ষর্থীরা মাদক ব্যবসায় নেমে পড়েছে। আর মাদক ব্যবসার জন্য মোটরসাইকেল জরুরী দরকার হয়ে পড়েছে।

তবে লাইসেন্সনবিহীন মোটরসাইকেলের বিরুদ্ধে পুলিশের অভিযান কমে যাওয়ায় টিনএস মোটরসাইকেল চালকরা মাদক ব্যবসাসহ নানান অপকর্মে জড়িয়ে পড়ছে।