নির্যাতিতা রাকিবা বিবি। ছবি: সংগৃহীত            

খোলাবার্তা২৪ ডেস্ক : স্ত্রীর ‘অপরাধ’, তিনি কন্যাসন্তানের জন্ম দিয়েছেন। তাই শাস্তি হিসাবে কপালে জুটল বেধড়ক মারধর। এখানেই ক্ষান্ত থাকেননি স্বামী। স্ত্রীর মাথার চুল কেটে তাঁকে ন্যাড়াও করে দিয়েছেন বলে অভিযোগ।

স্বামীর হাতে চরম লাঞ্ছনার শিকার হয়ে শিশুকন্যাকে কোলে নিয়ে শেষমেশ পুলিশের দ্বারস্থ হন স্ত্রী। তাঁর আরো অভিযোগ, এই দৃশ্য চুপচাপ দাঁড়িয়ে দেখেন পরিবারের বাকি সদস্যেরা।

ভারতের পশ্চিমবঙ্গের মুর্শিদাবাদ জেলার হরিহরপাড়ার সলুয়া গ্রামে গতকাল বৃহস্পতিবার এই ঘটনা ঘটেছে। স্ত্রীর অভিযোগের ভিত্তিতে অভিযুক্ত স্বামীকে গ্রেফতার করেছে হরিহরপাড়া থানার পুলিশ।

পুলিশ সূত্রে খবর, নির্যাতিতার নাম রাকিবা বিবি। তাঁর অভিযোগ, কন্যাসন্তানের জন্ম দেওয়ায় তাঁকে প্রচণ্ড মারধর করেন তাঁর স্বামী আব্দুল্লাহ শেখ। মাথায় বন্দুক ঠেকিয়ে তাঁকে ন্যাড়াও করে দেওয়া হয়েছে। সেই দৃশ্য চুপচাপ দাঁড়িয়ে দেখেছেন তাঁর শ্বশুর ও শাশুড়ি। মাস তিনেক আগে রাকিবার কন্যাসন্তান হয়েছে।

তাঁর অভিযোগ, তখন থেকেই অত্যাচারের মাত্রা বাড়তে থাকে। দিন সাতেক আগে মেয়ের জন্মের সনদপত্রের কথা জিজ্ঞাসা করায় তাঁর উপর চড়াও হন আবদুল্লাহ। মেয়েকে মেরে ফেলারও হুমকি দেন তিনি। তারপর টানা চলতে থাকে মারধর।

বৃহস্পতিবার অত্যাচারের সমস্ত সীমা অতিক্রম করায় তিনি থানার দ্বারস্থ হয়েছেন বলে জানান রাকিবা।

থানার সামনে দাঁড়িয়ে রাকিবাকে চিৎকার করে বলতে শোনা যায়, “আমি চাই না, আমার সঙ্গে যা ঘটেছে, সেটা আর কারো সঙ্গে ঘটুক। কেউ উৎসাহ পাক। আমি চাই, আমার স্বামীকে কঠোর শাস্তি দেওয়া হোক। যাতে এই রকম কাজ আর কেউ না করতে পারে।’’

স্থানীয় সূত্রে খবর, রাকিবা থানায় অভিযোগ করেছেন শুনে, বাড়ি ছেড়ে পালানোর চেষ্টা করেছিলেন আবদুল্লাহ। কিন্তু দ্রত ঘটনাস্থলে এসে তাঁকে গ্রেফতার করে পুলিশ। পুলিশ জানিয়েছে, রাকিবার অভিযোগ গ্রহণ করা হয়েছে। ঘটনারও তদন্ত শুরু হয়েছে। সব দিক খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

হরিহরপাড়ার বিডিও রাজা ভৌমিক বলেন, “আমি এই ঘটনা নিয়ে পুলিশের সঙ্গে কথা বলেছি। পুলিশ ব্যবস্থা নিচ্ছে। ঘটনার তীব্র নিন্দা করছি। সকলকে সচেতন করারও চেষ্টা করছি।’’ প্রশাসনের পক্ষ থেকেও নির্যাতিতার পাশে দাঁড়ানোর আশ্বাস দেওয়া হয়েছে।