মুন্সিগঞ্জ প্রতিনিধি : মুন্সিগঞ্জ জেলার চরমুক্তারপুরে একটি ভবনে বিস্ফোরণে দগ্ধ হয়ে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ভাইবোনের মৃত্যু হয়েছে।

গতকাল বৃহস্পতিবার দিবাগত ভোর রাত সাড়ে ৪টার দিকে শহরের চর মুক্তারপুরের শাহ সিমেন্ট রোডে একটি চারতলা ভবনের দ্বিতীয় তলায় এই বিস্ফোরণ ঘটে।

এতে একই পরিবারের চারজনসহ ৫ জন দগ্ধ হন।

প্রত্যক্ষদর্শী হাজী মজিবুর রহমান খান জানান, হঠাৎ বিকট শব্দ হয়। এসে দেখি ৩টি রুমেই আগুন। ফায়ার সার্ভিস আসার আগেই স্থানীয় লোকজন আগুন নেভায়। পরে শাহ সিমেন্ট কারখানা থেকে গাড়ি এনে দগ্ধ চারজনকে শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ণ ও প্লাস্টিক সার্জারী ইনস্টিটিউট হাসপাতালে পাঠানো হয়।

মুন্সিগঞ্জ সদর থানার পরিদর্শক (তদন্ত) রাজিব খান হাসপাতালের চিকিৎসকের বরাত দিয়ে জানান, বৃহস্পতিবার রাতে রাজধানী ঢাকার শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ণ ও প্লাস্টিক সার্জারী ইনস্টিটিউট হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ফাতেমা ওরফে নোহর (৩) ও ইয়াসিন (৬) মারা যায়।

তাদের বাবা-মা এখন একই হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। তাদের অবস্থা সংকটাপন্ন। শান্তা বেগমের (২৭) শরীরের ৫৫ শতাংশ এবং বাবা কাওসার খানের (৩৬) ৬০ শতাংশ পুড়ে গেছে।

থানার পরিদর্শক জানান, প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে- গ্যাস লিকেজ হয়ে কক্ষে জমে থাকা গ্যাস থেকে এই বিস্ফোরণ ঘটেছে। শীতের কারণে কক্ষের সব জানালা বন্ধ ছিল। তবে প্রকৃত কারণ উদঘাটনে তদন্ত চলছে। পুলিশের একটি টিম ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে।

তিতাস গ্যাসের সহকারি কর্মকর্তা তারিকুল ইসলাম তুহিন বলেন, গ্যাস লিগেজের কোন প্রমাণ মেলেনি। তবে চুলোর সুইসটা তেমন ভালো না। রান্নার পরে চুলোর গ্যাস বন্ধ না করার কারণেও হতে পারে।

মুন্সিগঞ্জ সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ হাসিব সরকার ঘটনাস্থল পরিদর্শনের পর সাংবাদিকদের বলেছেন, ঘটনাটি মর্মান্তিক। তবে বিস্ফোণের সঠিক কারণ খতিয়ে দেখা হচ্ছে ।