নিজস্ব প্রতিবেদক, টাঙ্গাইল : টাঙ্গাইলের মির্জাপুর উপজেলার ৬ ইউনিয়ন পরিষদ ১৫ জুন নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। মিছিল, মিটিং, পথসভা, উঠান বৈঠকে গণসংযোগ চলছে সমান তালে। পোস্টার, ব্যানারে ছেয়ে গেছে ইউনিয়নের অলিগলি। নির্বাচন ঘিরে শেষ সময়ে প্রচারের ব্যস্ত সময় পার করছেন প্রার্থী, কর্মী-সমর্থকেরা। সকাল থেকে রাত পর্যন্ত ঘুরছেন ভোটারদের দ্বারে দ্বারে। প্রার্থী, কর্মী-সমর্থকেরা দিচ্ছেন নানা প্রতিশ্রুতি।

মির্জাপুর উপজেলা নির্বাচন অফিস সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার ছয় ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন ভোট গ্রহণ হবে ১৫ জুন। যে সব ইউনিয়ন ভোট গ্রহণ হবে সেগুলো হলো তরফপুর, আজগানা, লতিফপুর, ফতেপুর, ভাওড়া ও বহুরিয়া । ছয় ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে ২২ জন, সংরক্ষিত মহিলা সদস্য পদে ৬০ জন ও সাধারণ সদস্য পদে ১৮৭ জন প্রার্থী প্রতিদ্ব›িদ্বতা করছেন।

বহুরিয়া ইউনিয়নে এবার চেয়ারম্যান পদে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করছেন তিনজন প্রার্থী। এই ইউনিয়নে ত্রিমুখী নির্বাচন হবে বলে জানান এলাকাবাসী। বহুরিয়া ইউপিতে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হয়েছেন আবু সাইদ (নৌকা), বিদ্রোহী হিসেবে লড়ছেন রেজাউল করিম বাবলু (আনারস), স্বতন্ত্র প্রার্থী বর্তমান চেয়ারম্যান আব্দুস সামাদ (ঘোড়া)। এলাকাবাসী জানান ইউনিয়নের বর্তমান চেয়ারম্যান আব্দুস সালাম ও সাবেক চেয়ারম্যান প্রার্থী আবু সাইদ ছাদুর (নৌকা) প্রতীকের মধ্যে মূল লড়াই হবে। অন্যদিকে আওয়ামী লীগের স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী রেজাউল করিম বাবুল জানান, বহুরিয়া এলাকাবাসীর যে ভালোবাসা তিনি পাচ্ছেন তাতে জয়ের ব্যাপারে তিনি শতভাগ আশাবাদী। বহুরিয়া ইউনিয়নে বর্তমান মোট ভোটার ১৮ হাজার ২শত ১০ জন,এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ৮ হাজার ৯শত ৭৭ জন ও নারী ভোটার ৯হাজার ২শত ৩৩ জন।

এদিকে ফতেপুর ইউনিয়নে এবার চেয়ারম্যান পদে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করছেন চারজন প্রার্থী। ফতেপুর ইউপিতে আওয়ামী লীগের প্রার্থী বর্তমান চেয়ারম্যান আব্দুর রউফ ( নৌকা), স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়ে লড়ছেন সাবেক চেয়ারম্যান হুমায়ূন তালুকদার (মোটরসাইকেল)। এ ছাড়া স্বতন্ত্র প্রার্থী আফসার উদ্দিন (ঘোড়া) ও সুমন আহমেদ ফিরোজ (আনারস) প্রতীকে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। আওয়ামী লীগের মনোনীত পদপ্রার্থী আব্দুর রউফ ও তাঁর ছেলের বিরুদ্ধে স্বতন্ত্র প্রার্থী ও সাবেক চেয়ারম্যান হুমায়ূন তালুকদারের ছোট ভাই যুবলীগের নেতা তোজাম্মেল হোসেন তালুকদার টিটুকে মারধরের অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনার পর টিটু থানায় লিখিত অভিযোগ করেন এবং সংবাদ সম্মেলন করেন। এ ঘটনার পর দুই প্রার্থীর কর্মী-সমর্থকদের মধ্যে চাপা ক্ষোভ বিরাজ করছে। যেকোনো সময় মারামারির আশঙ্কা রয়েছে বলে জানা গেছে। এই ইউনিয়নে এলাকা ভিত্তিক নির্বাচনের আশংকা তবে স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী হুমায়ূন তালুকদার (মোটরসাইকেল) ও মো.আফছাস সিকদার (ঘোড়া) ও সুমন আহমেদ ফিরোজ (আনারস) নিজ এলাকাতে ভাল অবস্থানা রয়েছেন। ফতেপুর ইউনিয়নে বর্তমান মোট ভোটার ১৭ হাজার ৯শত ২৬ জন,এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ৯হাজার ৫১ জন ও নারী ভোটার ৮ হাজার ৮শত ৭৫ জন।

তরফপুর ইউনিয়নে এবার চেয়ারম্যান পদে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করছেন চারজন প্রার্থী। তরফপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি নাজিম মোল্লা (নৌকা)। এ ছাড়া স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে লড়ছেন বর্তমান চেয়ারম্যান সাঈদ আনোয়ার (আনারস), সাবেক দুইবারের চেয়ারম্যান শরিফুল ইসলাম শরীফ (চশমা), স্বতন্ত্র প্রার্থী আজিজ রেজা (মোটরসাইকেল) ও স্বতন্ত্র প্রার্থী বছির উদ্দিন খান (ঘোড়া)। তবে সাঈদ আনোয়ার ও বছির উদ্দিন খান আজিজ রেজাকে সমর্থন জানিয়ে নির্বাচনী মাঠ থেকে সরে দাঁড়িয়েছেন এবং তার পক্ষে নির্বাচনী এলাকায় ভোট প্রার্থনার করছেন। এই ইউনিয়নে মূল প্রতিদ্ব›িদ্ধতা হবে স্বতন্ত্র পদপ্রার্থী আজিজ রেজা (মোটরসাইকেল) ও আওয়ামী লীগের প্রার্থী নাজিম মোল্লা (নৌকা) মধ্যে। টাকিয়া কদমা উত্তর এলাকার বৃদ্ধা কুলসুম বেগম বলেন, ‘অনেক প্রতিশ্রুতি দিয়ে প্রার্থীরা নির্বাচিত হন কিন্তু আমাদের উন্নয়ন হয় না। এবার আমরা সঠিক মানুষকেই ভোট দেব।’ একই কথা বলেন, তরফপুর ইউনিয়নের স্বতন্ত্র পদপ্রার্থী আজিজ রেজা। তিনি বলেন, সুষ্ঠু ভোট হলে তাঁর জয় নিশ্চিত। তরফপুর ইউনিয়নে বর্তমান মোট ভোটার ১৯ হাজার ৫শত ১৪জন,এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ৯হাজার ৮শত ৬৫জন ও নারী ভোটার ৯ হাজার ৬শত ৪৯ জন।

লতিফপুর ইউনিয়নে এবার চেয়ারম্যান পদে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করছেন তিনজন প্রার্থী। এই ইউনিয়নে ত্রিমুখী নির্বাচন হবে বলে জানান এলাকাবাসী। লতিফপুর ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হয়েছেন দুই বারের নির্বাচিত চেয়ারম্যান মো.জাকির হোসেন (নৌকা), জনগণের স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী হিসেবে লড়ছেন মো.মোশারফ হোসেন (আনারস) ও বিএনপি নির্বাচন অংশ গ্রহণ না করলেও স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে চেয়ারম্যান পদে লড়ছেন মো.আলী হোসেন রনি ( মোটরসাইকেল)। এলাকাবাসী জানান লতিফপুর ইউনিয়নের এবার নির্বাচন হবে মূলত টান আর নিচ এলাকা নিয়ে লতিফপুরে আওয়ামী লীগের প্রার্থী বর্তমান জাকির হোসেন (নৌকা), হিসেবে মোশারফ হোসেন (আনারস) ও আলী হোসেন রনি (মোটরসাইকেল) প্রতীকের মধ্যে মূল প্রতিদ্বন্দ্বিতা। জনগণের স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী মো.মোশারফ হোসেন বলেন,তৃর্ণমূল জনগণের যে ভালোবাসা তিনি পাচ্ছেন তাতে জয়ের ব্যাপারে তিনি শতভাগ আশাবাদী। লতিফপুর ইউনিয়নে বর্তমান মোট ভোটার ১৪ হাজার ৭শত ৯৫ জন,এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ৭হাজার ৪শত ৮জন ও নারী ভোটার ৭হাজার ৩শত ৮৭ জন।

ভাওড়া ইউনিয়নে এবার চেয়ারম্যান পদে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করছেন চারজন প্রার্থী। ভাওড়া ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের প্রার্থী বর্তমান চেয়ারম্যান আমজাদ হোসেন (নৌকা), স্বতন্ত্র হিসেবে লড়ছেন সাবেক চেয়ারম্যান সাইদুর রহমান সাঈদ (আনারস), স্বতন্ত্র প্রার্থী মাসুদুর রহমান মাসুদ (ঘোড়া) ও স্বতন্ত্র প্রার্থী আব্দুল হালিম (মোটরসাইকেল)। এই ইউনিয়নে ত্রিমুখী নির্বাচন হবে বলে জানান এলাকাবাসী। আওয়ামী লীগের প্রার্থী বর্তমান চেয়ারম্যান আমজাদ হোসেন (নৌকা), স্বতন্ত্র প্রার্থী সাবেক চেয়ারম্যান সাইদুর রহমান সাঈদ (আনারস), স্বতন্ত্র প্রার্থী মাসুদুর রহমান মাসুদ (ঘোড়া) এই তিন প্রার্থীর মধ্যে মূল প্রতিদ্বন্দ্বিতা হবে বলে সাধারণ জনগণ জানান। ভাওড়া ইউনিয়নে বর্তমান মোট ভোটার ১৬হাজার ১শত ৩জন, এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ৮হাজার ২শত ১৪জন ও নারী ভোটার ৭ হাজার ৮শত ৮৯ জন।

আজগানা ইউনিয়নে এবার চেয়ারম্যান পদে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করছেন তিনজন প্রার্থী। আওয়ামী লীগের প্রার্থী আব্দুল কাদের সিকদার ( নৌকা)। ও স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে বর্তমান চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম সিকদার (মোটরসাইকেল) এবং স্বতন্ত্র আবুল হোসেন কনক (ঘোড়া) প্রতীক নিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। এই ইউনিয়নে নির্বাচন মূলত স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে রফিকুল ইসলাম সিকদার (মোটরসাইকেল) ও আওয়ামী লীগের প্রার্থী আব্দুল কাদের সিকদার ( নৌকা)প্রতীকের মধ্যে প্রতিদ্বন্দ্বিতা হবে। আজগানা ইউনিয়নে বর্তমান মোট ভোটার ২৭ হাজার ৯শত ১৫জন,এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ১৪হাজার ১শত ৩৬ জন ও নারী ভোটার ১৩ হাজার ৭শত ৩৮ জন।

সরেজমিনে দেখা গেছে, ৬ ইউনিয়নের হাট-বাজার, চায়ের দোকানে চলছে নির্বাচনী আলাপ-আলোচনা। প্রার্থীরা অটোরিকশা, ইজিবাইক বা রিকশায় মাইক বেঁধে নির্বাচনী প্রচার চালাচ্ছেন।

এসব বিষয়ে মির্জাপুর উপজেলার নির্বাচন কর্মকর্তা শরীফা বেগম বলেন, সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ নির্বাচনসম্পন্ন করতে সব ধরনের প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে।

মির্জাপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. হাফিজুর রহমান জানান, নির্বাচনী আচরণবিধি মেনে প্রচার চালাতে সব প্রার্থীদের আহবান জানানো হয়েছে। তিনি আশা করেন, সামনের দিনগুলোতে সব প্রার্থী আচরণবিধি মেনে সুন্দর, সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ ভোট গ্রহণে সহায়তা করবেন। উপজেলার ৬ ইউনিয়নে অস্থায়ী ৭টিসহ মোট ৬২ টি কেন্দ্রে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন (ইভিএম) এ আগামি ১৫ জুন ভোট প্রয়োগের সুব্যবস্থা করা হয়েছে।