এম এম হারুন আল রশীদ হীরা, নওগাঁ : নওগাঁর মান্দায় ১৫ দিন পেরিয়ে গেলেও অপহরণের শিকার স্কুলছাত্রীকে (১৪) উদ্ধার করতে পারেনি পুলিশ। এতে ভিকটিম পরিবারের মাঝে চরম হতাশা বিরাজ করছে। একই সঙ্গে ভিকটিমের নিরাপত্তা নিয়েও উদ্বিগ্ন হয়ে পড়েছেন পরিবারটি।

পরিবারটির অভিযোগ, ভিকটিমকে উদ্ধারে জোরালো ভূমিকা নেই থানা পুলিশের। শুধুমাত্র একবার ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেই সব দায় এড়ানো চেষ্টা করছেন। ঘটনায় এখন পর্যন্ত মামলাও নেওয়া হয়নি।

তবে পুলিশ বলছে, ভিকটিমকে উদ্ধারে বিভিন্ন কৌশল কাজে লাগানো হচ্ছে। অভিযুক্ত ব্যক্তির ব্যবহৃত মোবাইলফোন বন্ধ থাকায় তাঁর নিকটাত্মীদের মোবাইলফোনে নজর রাখা হয়েছে। খুব শিগগিরই ভিকটিমকে উদ্ধার করা হবে।

ভিকটিম স্কুলছাত্রীর বাবা জানান, তাঁর মেয়ে স্থানীয় একটি বালিকা বিদ্যালয়ে অষ্টম শ্রেণিতে লেখাপড়া করে। গত ২৫ মে সকাল সাড়ে ৯টার দিকে স্কুল ড্রেস পরে বিদ্যালয়ে যাওয়ার উদ্দেশ্যে বাড়ি থেকে বেরিয় যায়। বিকেল ৫টা পর্যন্ত সে বাড়ি ফিরে না আসায় স্কুলসহ সাম্ভাব্য বিভিন্ন জায়গায় অনেক খোঁজাখুঁজি করেও তার হদিস পাওয়া যায়নি।

তিনি অভিযোগ করে বলেন, ‘গ্রামের আলিরাজ নামে এক ব্যক্তি স্কুলে যাওয়া-আসার পথে প্রায়ই সময় আমার মেয়েকে নানাভাবে উত্ত্যক্ত করে আসছিল। ওই ব্যক্তিই আমার মেয়েকে অপহরণ করেছে নিশ্চিত হয়ে থানা পুলিশের স্মরণাপন্ন হই। পুলিশ এ ঘটনায় অভিযোগ নিয়ে দায়সারা তদন্ত করছে। এখন পর্যন্ত মামলাও রেকর্ডভূক্ত করা হয়নি।’

স্থানীয় ইউপি সদস্য শহিদুল ইসলাম বলেন, মেয়েটিকে উদ্ধারে পুলিশের তেমন কোন জোড়ালো ভূমিকা নেই। অভিযুক্ত ব্যক্তি তার বাবা-মার সাথে নিয়মিত যোগাযোগ রাখছেন। তাদেরসহ অভিযুক্তের এক আত্মীয়কে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ করলেই ভিকটিমকে উদ্ধার করা যাবে।

মান্দা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শাহিনুর রহমান শাহিন সাংবাদিকদের জানান, এ ঘটনার তদন্তসহ ভিকটিমকে উদ্ধারের জন্য থানার উপপরিদর্শক (এসআই) আবু হাসানকে দায়িত্ব দেয়া হয়েছে। ভিকটিমকে উদ্ধারসহ জড়িতদের আটকে সবধরণের চেষ্টা চালাচ্ছে পুলিশ।