এম এম হারুন আল রশীদ হীরা, নওগাঁ : নওগাঁর মান্দায় সিআইডি পরিচয়ে চাঁদা আদায়ের সময় তিন যুবককে আটক করে পুলিশে সোর্পদ করেছে স্থানীয়রা। রোববার দুপুরে উপজেলার ফেরিঘাট এলাকা থেকে তাঁদের আটক করা হয়।

আটক যুবকরা হলেন, নওগাঁর মহাদেবপুর উপজেলার উত্তরগ্রাম এলাকার হায়দার আলীর ছেলে হাফিজুর রহমান (৩৬), ফয়জুল ইসলামের ছেলে তুষার আলম (২৪) ও বাজিতপুর গ্রামের আবেদ আলীর ছেলে মাহফুজ জামান (২৯)।

এদের মধ্যে হাফিজুর রহমান ঢাকা সিআইডি’তে কর্মরত থাকা অবস্থায় মাদক সেবনের অভিযোগে ২০২০ সালে চাকরিচ্যুত হন। এরপর থেকে সিআইডি পরিচয়ে বিভিন্ন এলাকায় চাঁদাবাজি করে আসছিলেন তিনি বলে অভিযোগ রয়েছে।

আটক তুষার আলম নওগাঁ সরকারী কলেজে অনার্স তৃতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী ও মাহফুজ জামান একজন ভবঘুরে।

পুলিশ জানায়, প্রাথমিক জিজ্ঞাসবাদে হাফিজুর রহমান স্বীকার করেন ডোপটেস্টে মাদক সেবন প্রমাণিত হওয়ায় সিআইডি থেকে তাকে চাকরিচ্যুত করা হয়। এরপর থেকে ডুব্লিকেট পরিচয়পত্রে চাঁদাবাজির পেশায় জড়িয়ে পড়েন। তুষার ও জামান এ পেশায় তার অন্যতম সহযোগী ছিল বলেও আরো জানান ।

উপজেলার হাটোইর গ্রামের বাসিন্দা ভুক্তভোগী রতন চন্দ্র সরকার বলেন, তিনি অনলাইনে ফ্রিল্যান্সিং ব্যবসা করেন। আটক হাফিজুর রহমান ১০ দিন আগে সিআইডি পরিচয়ে তাকে গ্রেফতার সহ বিভিন্ন হুমকি দিয়ে ১৮ হাজার টাকা হাতিয়ে নিয়ে যান।

রতন চন্দ্র সরকার আরও দাবি করে বলেন, দু’তিন দিন ধরে হাটোইর এলাকার কৌশিক চন্দ্র সরকারের কাছে একইভাবে মোটা অংকের টাকা দাবি করে আসছিলেন হাফিজুর রহমান। বিষয়টি এলাকার লোকজনদের তারা অবহিত করেন।

রোববার টাকা দেওয়ার কথা বলে কৌশলে তাদের ফেরিঘাট এলাকায় ডেকে নেয়া হয়। পরে তাদের আটক করে পুলিশে সোপর্দ করেন স্থানীয় লোকজন।

ডিউটি কর্মকর্তা এস আই আবদুল মান্নান জানান, আটককৃতরা কয়েদখানায় আবদ্ধ আছেন। তবে তিনি রাত ৮ টার পরে দায়িত্ব পেয়েছেন তাই সঠিক কিছু এখনো বলতে পারছেন না।

মান্দা থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মেহেদী মাসুদ বলেন, আটককৃতরা প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে চাঁদা আদায়ের কথা স্বীকার করেছেন। এ ঘটনায় থানায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।