মামুন হোসেন, ভান্ডারিয়া (পিরোজপুর) : পিরোজপুরের ভান্ডারিয়া উপজেলার বিদ্যাপিঠের উন্নয়ন ও সাধারণ মানুষের কাছে ভরসার নাম মো: মিরাজুল ইসলাম। দেশে যখন বিভিন্ন স্থানে জনপ্রতিনিধিদের নানান অনিয়মের সংবাদ প্রচার হচ্ছে। সেখানে তিনি সাধারণ জনগনের নানা সমস্যা কবলিত মানুষদের কাছ থেকে সেবা দিয়ে যাচ্ছেন। তিনি এবার বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৭তম শাহাদাৎ বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস যথাযথ মর্যাদায় পালনের জন্য ৩৩০ টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ১৭ লক্ষ টাকা অনুদান দিয়েছেন। অনুদানের এই অর্থ নিজস্ব তহবিল থেকে তিনি দান করেন। এ কারণে তিনি সাধারণ মানুষের কাছে মানবতার ফেরিওয়ালা হিসেবেও পরিচিতি লাভ করেছেন।

গতকাল শনিবার বিকেলে উপজেলা পরিষদ অডিটোরিয়ামে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকদের এক সভায় প্রধান অতিথি থেকে এ অনুদান প্রদান করেন।

এ সময় আন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান মশিউর রহমান মৃধা, ধাওয়া ইউপি চেয়ারম্যান সিদ্দিকুর রহমান টুলু, গৌরীপুর ইউপি চেয়ারম্যান মজিবুর রহমান চৌধুরী, উপজেলা শিক্ষা অফিসার মোঃ নাছির উদ্দিন খলিফা, প্রধান শিক্ষক আঃ রাজাক প্রমূখ। আগামী ১৫ আগষ্ট শোক দিবস পালনের জন্য প্রতি বছরের ন্যায় অনুদান দেওয়া হয়েছে উপজেলার ১৬৫ টি প্রাথমিক বিদ্যালয়, ৮৪ টি মাধ্যমিক বিদ্যালয় ও মাদ্রাসায়, ৫ টি কলেজ, ২১ টি কিন্ডারগার্টেন এবং ৫৫ টি এতিমখানায়।

এ ছাড়া শোকের মাস উপলক্ষ্যে বিভিন্ন মসজিদ, মন্দির ও মাদ্রাসায় মাসব্যাপী কোরআন তেলাওয়াত, দোয়া মোনাজাত, প্রার্থনা ও খাদ্য সামগ্রী বিতরণ অব্যাহত থাকবে বলে জানিয়েছেন মিরাজুল ইসলাম। মিরাজুল ইসলাম ওয়েলফেয়ার ফাউন্ডেশনের পরিচালক মো: এহসাম হাওলাদার জানান, তিনি প্রতিহিংসা, হানাহানি, রক্তপাত আর প্রতিপক্ষকে ঘায়েল করতে পছন্দ করেন না।

তিনি জনগণের শান্তি ও উন্নয়নে বিশ্বাসী। তাইতো করোনা কালে গোটা ভান্ডারিয়া উপজেলার প্রতিটা পরিবারকে খাদ্য সহয়তা দিয়ে ছিলো। তাছাড়াও অসহায়,প্রতিবন্ধী ও দিনমজুর শ্রমিকদের শত শত অভাবী ব্যক্তিদের অটোরিক্সা বিনামূল্যে প্রদান সহ প্রতিবন্ধী স্কুলে লাখ লাখ টাকা অর্থ সহয়তা দিচ্ছে মানবতার চেয়ারম্যান মিরাজুল ইসলাম।

এ ছাড়াও প্রতিনিয়ত উপজেলার প্রান্তিক অসহায় মানুষের খাবার ঔষুধ কিনে দিচ্ছেন তিনি। উল্লেখ্য, সারাদেশে জাতীয় প্রাথমিক শিক্ষা পদক ২০১৯ এর জাতীয় পর্যায়ে শ্রেষ্ঠ ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের নাম ঘোষণা করে শিক্ষা অধিদফতর। সেখানে শ্রেষ্ঠ উপজেলা চেয়ারম্যান হিসেবে নির্বাচিত হন মিরাজুল ইসলাম।