খোলাবার্তা২৪ ডেস্ক : অভিবাসনপ্রত্যাশীদের আটকে রেখে অকথ্য নির্যাতন চালানো, নির্যাতনের ভিডিও পাঠিয়ে পরিবারকে টাকা দিতে বাধ্য করা- এমন সব অভিযোগে দুই পাকিস্তানি এবং দুই আফগানকে গ্রেপ্তার করেছে মেসিডোনিয়ার পুলিশ৷

উত্তর মেসিডোনিয়ার সার্বিয়া সংলগ্ন সীমান্ত এলাকা থেকে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়৷ সার্বিয়ার পুলিশের দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে সপ্তাহান্তে অভিযান পরিচালনার সময় সেই এলাকা থেকে ৩৫ জন অভিবাসনপ্রত্যাশীকেও উদ্ধার করে উত্তর মেসিডোনিয়ার আইন-শৃঙ্খলা বাহিনি৷ ৩৫ জনের মধ্যে নয় জনের বয়স ১৪ থেকে ১৫ বছরের মধ্যে৷

আটক চারজনের বিরুদ্ধে অভিযোগ, তারা গ্রিস থেকে মেসিডোনিয়া এবং সার্বিয়া হয়ে ক্রোয়েশিয়া বা হাঙ্গেরিতে যেতে আগ্রহীদের মেসিডোনিয়া সীমান্তে আটকে রাখে৷ অভিবাসনপ্রত্যাশীরা যাতে নিজেদের পরিবার এবং আইন-শৃঙ্খলা বাহিনির সঙ্গে যোগাযোগ করতে না পারে তা নিশ্চিত করতে প্রথমেই তাদের কাছ থেকে মোবাইল ফোন, পাসপোর্ট এবং অন্যান্য কাগজপত্র নিয়ে নেয়া হয়৷ তারপর শুরু হয় টাকা আদায়ের জন্য চাপ প্রয়োগ এবং মারধর৷ নগদ টাকা না পেলে টাকা আদায়ের জন্য মারধরের দৃশ্য ভিডিও করে তা পরিবারের কাছে পাঠানো হতো বলেও মেসিডোনিয়ার পুলিশকে জানায় সার্বিয়ার পুলিশ৷ এসব অভিযোগ পেয়েই সপ্তাহান্তে সীমান্ত সংলগ্ন এলাকায় বিশেষ অভিযান পরিচালনা করে মেসিডোনিয়ার আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনি৷

মেসিডোনিয়া পুলিশের ধারণা, আটক চারজন এক মানবপাচারকারী দলের সদস্য৷ দুইজন অভিবাসনপ্রত্যাশী পালিয়ে সার্বিয়ায় গিয়ে সেখানকার পুলিশকে সব তথ্য জানানোয় দুই পাকিস্তানি এবং দুই আফগানকে আটক করার জন্য বিশেষ অভিযান পরিচালনা করা হয়৷ অভিযোগ প্রমাণিত হলে আটক হওয়া চারজনের সর্বোচ্চ আট বছরের জেল হতে পারে৷