ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি : ভৈরব দ্বিতীয় রেলসেতুতে উঠার সময় ঢাকাগামী তিতাস কমিউটার ট্রেনের ইঞ্জিন সাময়িক ভাবে বিকল হওয়ার ঘটনা ঘটেছে। পরে উল্টো দিকে প্রায় দুই কিলোমিটার ফিরে গিয়ে নির্ধারিত সময়ের প্রায় ১ ঘন্টা পর ট্রেনটি আশুগঞ্জ স্টেশন অতিক্রম করে।

শনিবার সকালে আশুগঞ্জ রেলস্টেশন অতিক্রম করার সময় এসব ঘটনা ঘটে। অতিরিক্ত যাত্রীসহ একাধিক কারণে এ ধরনের ঘটনা ঘটতে পারে বলে বলে জানিয়েছে রেলওয়ে সংশ্লিষ্টরা। তবে এদিকে আশুগঞ্জ স্টেশনে কোন দায়িত্বশীল কর্মকর্তা না থাকায় কোন সুনিদিষ্ট কারণ জানা সম্ভব হয়নি।

রেলওয়ে এবং স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, শনিবার সকাল ৬টা ৪ মিনিটে আখাউরা থেকে ছেড়ে আসা ঢাকাগামী তিতাস কমিউটার ট্রেনটি প্রচুর সংখ্যক যাত্রী নিয়ে উপজেলার তালশহর স্টেশন অতিক্রম করে এবং ৬টা ১০ মিনিটে আশুগঞ্জ স্টেশনে নির্ধারিত যাত্রাবিরতি দেয়। স্টেশনে যাত্রী উঠানামা শেষে ট্রেনটি স্টেশন ছেড়ে দ্বিতীয় রেলসেতুতে উঠতে গেলে উঠতে পারেনি। বেশ কয়েক দফা চেষ্টার পর ট্রেনটি আবার উপজেলার বড়তল্লা অতিক্রম করে প্রায় তালশহর পর্যন্ত প্রায় দুই কিলোমিটার উল্টো দিকে ফিরে যায়। পরে প্রায় এক ঘন্টা পর সকাল সোয়া ৭টার দিকে আশুগঞ্জ স্টেশন অতিক্রম করে।

এদিকে আশুগঞ্জ রেলস্টেশনে নির্ধারিত স্টেশন মাস্টার না থাকায় এবং এসময় দায়িত্বশীল কেউ না থাকায় কোন সুষ্পষ্ট কোন তথ্য জানা সম্ভব হয়নি। তবে রেলওয়ের বিভিন্ন দপ্তরে যোগাযোগ করে জানা গেছে, এটি ইঞ্জিন বিকল নয়। মূলত কোন কারণে ইঞ্জিন দুর্বল হয়ে গেলে এবং অতিরিক্ত যাত্রীর চাপ থাকলে এমনটি হয়। তাছাড়া কোন কারণে ট্রেনের চাকা স্লিপ (হুইল স্লিপ) করলে এমনটি হতে পারে। ট্রেনটি উল্টো দিকে যাবার সময় বার বার হইসেল দিতে থাকায় রেললাইনের আশে পাশের লোকজন সর্তক থাকায় কোন ধরনের দুর্ঘটনা ঘটেনি।

এ ব্যাপারে তিতাস কমিউটার ট্রেনের আশুগঞ্জ স্টেশনের টিকেট বিক্রির দায়িত্বে থাকা একজন নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, ট্রেনটি প্রচুর সংখ্যক যাত্রী নিয়ে আশুগঞ্জ স্টেশনে যাত্রাবিরতি দেয়। যাত্রাবিরতি শেষে ট্রেনটি দ্বিতীয় ভৈরব রেলসেতুতে উঠার পর আর সামনে এগুতে পারছিল না। পরে বেকে (উল্টো পথে) প্রায় তালশহর স্টেশন পর্যন্ত গিয়ে আবার সেতু অতিক্রম করে।

রেলওয়ের একজন লোকোমাস্টার নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, ট্রেনের চাকা ¯িøপ (হুইল ¯িøপ) করলে মাঝে মাঝে ইঞ্জিন সচল থাকলেও ট্রেন এগুতে পারেনা। হয়তো এমনটিই ঘটেছে।

এ ব্যাপারে তালশহর স্টেশনের স্টেশন মাস্টার গোলাম নবী বলেন, তিতাস ট্রেনের ইঞ্জিন সাময়িক বিকল হয়েছিল। ট্রেনটি ফিরে যাবার কথা থাকলেও পরে ইঞ্জিন ঠিক হওয়ায় তা ঢাকা চলে যায়।

ভৈরব স্টেশনের স্টেশন মাস্টার (আশুগঞ্জ স্টেশনে অতিরিক্ত দায়িত্বে) মোঃ নুর নবী বলেন বিষয়টি অবগত নয়। তবে হয়তো সেতু একটু উচু হওয়ার উঠতে পারেনি। ইঞ্জিনের দুর্বলতার কারণে মাঝে মাঝে এমনটি হতে পারে।

এ ব্যাপারে আখাউরা রেলওয়ে স্টেশনের লেকো মাস্টার মোঃ মনির উদ্দিন বলেন, আখাউড়ার খড়মপুর মাজারে উরশ থাকায় ট্রেনে প্রচুর যাত্রী ছিল। অতিরিক্ত লোড থাকায় ট্রেনটি সেতুতে উঠতে পারেনি। তবে বিষয়টি ঢাকার নিয়ন্ত্রণ কক্ষ ভাল বলতে পারবেন।

আখাউরা রেলওয়ের নির্বাহী প্রকৌশলীর সরকারি ফোন মোবাইল নম্বরে (০১৭১১-৬৯২৮২৪) ফোন দিলে তিনি এরকম কোন তথ্য জানেন না জানিয়ে ভৈরব স্টেশন মাস্টারের সাথে কথা বলতে বলে লাইন কেটে দেন।