সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি : কালোবাজারে ঈদ উপহারের ভিজিএফের চাল বিক্রির মামলায় সুনামগঞ্জের তাহিরপুরের নারী ইউপি সদস্য মিনারা বেগমকে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

এ মামলার অপর আসামি মুদি দোকানি আম্বিয়া বেগমকেও কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

শুক্রবার দুপুরে তাদের জেলা কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন আদালত।

তাহিরপুর থানার ওসি মো. আব্দুল লতিফ তরফদার এ তথ্য নিশ্চিত করেন।

এর আগে বৃহস্পতিবার রাতে পরস্পরের যোগসাজশে ভিজিএফের চাল আত্মসাতে কালোবাজারে বিক্রির জন্য মজুত করার অভিযোগে তিনজনের বিরুদ্ধে থানায় মামলা করা হয়।

মামলার আসামিরা হলেন- উপজেলার ১নং শ্রীপুর উত্তর ইউনিয়নের ১ ও ২নং সংরক্ষিত ওয়ার্ডের নারী ইউপি সদস্য কলাগাঁও গ্রামের নাসির উদ্দিনের স্ত্রী মিনারা বেগম, পার্শ্ববর্তী লালঘাট গ্রামের ইছব মিয়ার স্ত্রী মুদি দোকানি আম্বিয়া বেগম ও একই গ্রামের গ্রামের মৃত মঞ্জিল মিয়ার ছেলে শামছুল হক।

উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা (পিআইও) কাজি মো. মাসুদুর রহমান বাদী হয়ে মামলাটি করেন।

মামলার এজাহার ও স্থানীয় সূত্র জানায়, ঈদুল ফিতর উপলক্ষে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উপহার হিসেবে দরিদ্রদের মধ্যে বিতরণের জন্য দেওয়া উপজেলার ১নং শ্রীপুর উত্তর ইউনিয়ন পরিষদ থেকে কৌশলে কয়েক বস্তা ভিজিএফের চাল সরিয়ে নিয়ে মুদি দোকানির কাছে বিক্রি করা হয়।

বিষয়টি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) ও থানা পুলিশকে গ্রামবাসী জানান।

পরে উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো. আলাউদ্দিন ওই ইউনিয়নের লালঘাটের ইছব মিয়ার স্ত্রী আম্বিয়া বেগমের মুদি দোকান থেকে বৃহস্পতিবার সাত বস্তা (প্রতি বস্তায় ৫০ কেজি) চাল জব্দ করেন।