ভান্ডারিয়া প্রতিনিধি : পিরোজপুরের ভান্ডারিয়া উপজেলার আতরখালী মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণির এক (১৬) ছাত্রীকে ধর্ষণ করেছে স্থানীয় রাজপাশা গ্রামের একাধীক মামলার আসামী শামীম মৃধা (৩০) নামের এক বখাটে। ধর্ষক শামিম মৃধা ৫ নম্বর ধাওয়া ই্উনিয়নের ৬ নম্বর ওয়ার্ডের মৃত বারেক মৃধার ছেলে।

এ দিকে আজ সোমবার সকালে বিদ্যালয়ের সামনে ধর্ষক শামিম মৃধাকে গ্রেফতারের দাবিতে ভুক্তভোগী শিক্ষার্থীর বিদ্যালয়ের শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা মানববন্ধন করেছে।

এতে বক্তব্য রাখেন সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান হাবিবুর রহমান হারিস, বীর মুক্তিযোদ্ধা সেলিম পঞ্চায়েত, অত্র বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত শিক্ষক খলিলুর রহমান, শিক্ষক নাছির উদ্দিন ও শিক্ষার্থী মেহেদী হাচান, আয়শা ও রহিমা আক্তার প্রমূখ।

স্থানীয় ও মামালা সূত্রে জানা গেছে, গত রবিবার বিকালে স্কুল ছাত্রী পরীক্ষা দিয়ে বাড়ি ফেরার পথে দেশীয় অস্ত্রের ভয়ভীতি দেখিয়ে জোরপূর্বক স্থানীয় আতরখালী গ্রামের নাছির উদ্দিন হাওলাদারের কলা বাগানে নিয়ে ধর্ষণ করার অভিযোগ রয়েছে শামীমের বিরুদ্ধে। ওই ছাত্রীর বাড়ী উপজেলার ৪ নম্বর ইকড়ি ইউনিয়নে। বাবা বাড়ী না থাকায় ছাত্রী ধর্ষিত হওয়ার ঘটনা তার মাকে খুলে বলেন। পরে ছাত্রীর মা বাদি হয়ে রাতে ভান্ডারিয়া থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে একটি মামলা করেন।

আতরখালী মাধ্যমিক বিদ্যালয় কমিটির সাবেক সভাপতি সেলিম পঞ্চায়েত জানান, উক্ত বখাটে শামিম মৃধার নামে ৫ টি ধর্ষণ মামলা সহ ১১টি নানা অপকর্মের মামলা রয়েছে। উক্ত মামলার মধ্যে ৫/৬টি মামলায় সে ওয়ারেন্ট ভুক্ত আসামী। তার অত্যাচারে আজ সবাই অতিষ্ট। তিনি বখাটে শামিমকে দ্রুত গ্রেফতার পূর্বক ফাসির দাবি জানান।

এ ব্যাপারে ভান্ডারিয়া থানার অফিসার্স ইন চার্জ (ওসি) মো. মাসুমুর রহমান বিশ্বাস জানান, ভূক্তভোগীর মা বাদি হয়ে একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে। স্কুলছাত্রীর শারীরিক পরীক্ষার জন্য সোমবার পিরোজপুর জেলা সিভিল সার্জন কার্যালয়ে পাঠানো হয়েছে। আসামী গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে। শামীমের বিরুদ্ধে এর পূর্বেও বেশ কয়েকটি মামলা রয়েছে।