ভান্ডারিয়া প্রতিনিধি : পিরোজপুরের ভান্ডারিয়ায় কবরস্থানের প্রাচীর ভেঙে তসনচ করেছে প্রতিপক্ষরা। এতে অন্তত ৪ জন আহত হয়েছে। ঘটনাটি ঘটেছে গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে উপজেলা পৌর শহরের ৪ নং ওয়ার্ড জামিরতলা গ্রামে। আহত ব্যক্তিরা ভান্ডারিয়া হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে।

আহত ব্যক্তিরা হলেন, উপজেলার জামিরতলা গ্রামের মোহাম্মদ আলী বেপারীর মেয়ে হামিদা বেগম (২৪), ছেলে রাসেল বেপারী (২৮), মাহাম্মদ আলী বেপারীর স্ত্রী হেরিয়া বেগম(৫৫), মৃত মোকসেদ আলী হাওলাদারের স্ত্রী আনোয়ারা বেগম (৬৬)।

এ ঘটনায় ভুক্তভোগি মো: মোহাম্মদ আলী বেপারী বাদী হয়ে বৃহস্পতিবার বিকালে ভান্ডারিয়া থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করে। মোহাম্মদ আলী বেপারী জানায়, উপজেলা জামিরতলা গ্রামের মৃত মোদাচ্ছের বেপারীর ছেলে কুদ্দুস বেপারী (৫৪), আলী হোসেন বেপারী (৪২), মৃত আব্দুল বেপারীর ছেলে মোতালেফ বেপারী (৪৭), শাহজাহান জোমাদ্দার, রুবেল বেপারী, আল আমিন বেপারী, জাবের বেপারী সহ বহিরাগত ৮/১০ জন মিলে বাড়ীর কবরস্থান দখল করতে জোড়পূর্বক তারা প্রবেশ করে এবং দাও কড়াল ও লাঠিসোটা দিয়ে হামলা চালিয়ে কুপিয়ে পিটিয়ে আহত করে প্রান নাশের চেষ্টা চালায়।

এ সময় তারা জমি দখল নিতে কবরস্থানের প্রাচীর-সিমানার ভেড়া ভেঙে পাশের খালে ফেলে দেয় এবং বাড়ীর সামনের বিভিন্ন স্থাপনায় ভাংচুর করে জীবন নাশের হুমকি দিয়ে চলে যায় ও হামলা কারীরা স্বর্নের ২ ছড়া চেইন নিয়ে যায়।

এ সময় স্থানীয়রা এগিয়ে এলে বিবাদীরা জীবন নাশের হুমকি দিয়ে চলে যায় এবং পরে স্থানীয়দের সহযোগিতায় ভান্ডারিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। উন্নত চিকিৎসার জন্য একজনে বরিশাল সেবাচিমে রেফার করা হয়েছে বলে হাসপাতাল সুত্রে জানা গেছে।

এ বিষয়ে অভিযুক্ত কুদ্দুস বেপারী কবরস্থান এর সিমানা ও জমি নিয়ে উভয়পক্ষের মধ্যে হাতাহাতির কথা স্বীকার করেন মাত্র।

এ ঘটনায় ভান্ডারিয়া থানায় মামলার প্রস্তুতি চলছে বলে থানা সূত্রে জানা গেছে।