ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি : ব্রাহ্মণবাড়িয়া পৌরসভার রাস্তা-ঘাট ও ড্রেনেজ ব্যবস্থার বেহাল দশা। গত কয়েক বছর ধরে পৌর সভার রাস্তাঘাটের সংস্কার কাজ হয়নি।

সম্প্রতি পৌরসভা থেকে ৯টি রাস্তার দরপত্র আহবান করা হয়। গত মঙ্গলবার বিকেল পর্যন্ত ছিল দরপত্র বিক্রির শেষ দিন। এনিয়ে ঠিকাদারদের মধ্যে চাঙাভাব দেখা গেছে।

পৌরসভা সূত্রে জানা গেছে, ৯টি কাজের বিপরীতে ৬২৫টি সিডিউল বিক্রি হয়েছে। ৯টি রাস্তার সংস্কার কাজ করতে ব্যয় ধরা হয়েছে সাড়ে তিন কোটি টাকা। আর ৬২৫টি সিডিউল বিক্রি করে পৌরসভার আয় হয়েছে প্রায় সাড়ে আট লাখ টাকা।

৯টি কাজের মধ্যে পৌর এলাকার মেড্ডা তিতাস পাড়া থেকে তিতাস নদী পর্যন্ত ৬৩ লাখ ৬৮ হাজার টাকা ব্যয়ে রাস্তা ও ড্রেন নির্মাণের জন্য ৯০টি, ৯৫ লাখ টাকা ব্যয়ে মুক্তিযোদ্ধা আলী আজম সড়ক সংস্কারে দু’টি আলাদা কাজে ১৪২টি, ২১ লাখ টাকা ব্যয়ে মেড্ডা পোদ্দার বাড়ি সড়ক সংস্কার কাজের জন্য ৬৭টি, ১৬ লাখ টাকা ব্যয়ে পীরবাড়ি মোড় থেকে সৎসঙ্গ বিহার রোড সংস্কারের কাজের জন্য ৬৪টি, ৩৭ লাখ টাকা ব্যয়ে মসজিদ রোড থেকে মহাদেবপট্টি সড়ক নির্মাণ কাজের জন্য ৬৯টি, সাত লাখ টাকা ব্যয়ে টাউন খালের পাশ উন্নয়ন কাজের জন্য ৫৯টি, শিমরাইলকান্দি চাষি ভবন থেকে বিএডিসি গেট পর্যন্ত ৫০ লাখ টাকা ব্যয়ে ড্রেন ও সড়ক নির্মাণ কাজের জন্য ৬৯টি, ভাদুঘর ফাটা পুকুর পাড়ের ড্রেন ও সড়ক নির্মাণের ৩৬ লাখ টাকা কাজের ৬৫টি সিডিউল বিক্রি হয়।

এতে পৌর সভার আয় হয়েছে আট লাখ ৫৬ হাজার টাকা, যা অফেরতযোগ্য। এক সপ্তাহের মধ্যে এসব সিডিউল যাচাই বাছাই করা হবে।

দরপত্র ও উন্মুক্তকরণ কমিটির সাধারণ সম্পাদক উপ-সহকারি প্রকৌশলী সুমন দত্ত বলেন, পৌরসভার কাজের দরপত্র আহবান করলে অনেক ঠিকদারই এতে অংশ নেন। তিনি বলেন, ৯টি কাজের বিনিময়ে আর ৬২৫টি সিডিউল বিক্রি হয়েছে।