ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি : একের পর এক ভুয়া গ্রেপ্তারি পরোয়ানায় (ওয়ারেন্টে) ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বিজয়নগরের এক ব্যক্তিকে হয়রানির অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ নিয়ে বুধবার ভুক্তভোগীর পক্ষে এলাকাবাসী মানববন্ধন ও পরিবারের পক্ষে সংবাদ সম্মেলন করা হয়। বেলা সাড়ে ১১টার দিকে উপজেলার আউলিয়া বাজারে মানববন্ধন করা হয়। পরে বেলা ১২টার দিকে নিজ বাড়ি উপজেলার খাটিংগা গ্রামের মো. মনির উদ্দিন খান।

এলাকাবাসী ও মনির খানের পরিবারিক সূত্র জানায়, প্রতিবেশি আবু তাহের মিয়ার সঙ্গে জমি নিয়ে বিরোধ চলছে মনির খানের। বিষয়টি নিয়ে আদালতে মামলা চলমান। এ অবস্থায় মনির খানকে একের পর এক মামলা দিয়ে ও আদালতের ভুয়া পরোয়ানা দিয়ে হয়রানি করা হচ্ছে। ঢাকার যাত্রাবাড়ি থানার দুই মামলার নম্বর দিয়ে ভুয়া গ্রেপ্তারি পরোয়ানা দিয়ে পুলিশের মাধ্যমে হয়রানির চেষ্টা করা হয়। পরোয়ানা নিয়ে ডিবি পুলিশ সেজে বাড়িতে এসে টাকাও নিয়ে যাওয়া হয়। এ ঘটনায় আদালতে মামলা চলছে। তবে মামলার বিষয়েও নানাভাবে প্রভাব বিস্তার করার চেষ্টা করা হচ্ছে।

মনির উদ্দিন জানান, তিনি ও পরিবারকে মামলা দিয়ে এবং ভুয়া পরোয়ানা দিয়ে হয়রানি করা হচ্ছে। তিনি এতে চরম নিরাপত্তাহীনতায় ও অশান্তির মধ্যে দিন কাটাচ্ছেন। এ বিষয়ে তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য তিনি দাবি জানান। তিনি বলেন, ‘একবার ডিবি পুলিশ সেজে পরোয়ানা নিয়ে আমার কাছে আসে। পরে আমি যে মামলায় ওয়ারেন্ট দেখানো হয় সেই মামলায় যে আমার নাম নেই বা কোনো সম্পৃক্ততা নেই এর কাগজপত্র দেখালে টাকা দিতে বলে। তখন টাকা দিয়েই আমি রক্ষা পাই।’

তবে আবু তাহের এ অভিযোগ অস্বীকার করেছেন। তিনি বলেন, যে জায়গা নিয়ে ঝামেলা সেটির কাগজ দেখাতে পারছেন না মনির উদ্দিন। এ কারণে মিথ্যা অভিযোগ করছেন। ভুয়া পরোয়ানা কিভাবে এলো তাও আমি জানি না। এসবের সঙ্গে আমার কোনো ধরণের সম্পৃক্ততা নেই।