নিজস্ব প্রতিবেদক : সিরাজগঞ্জের বেলকুচি উপজেলার রাজাপুর ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামীলীগের মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থী সনিয়া সবুর আকন্দের (নৌকা) এক সমর্থকের বাড়ি ঘর ভাঙচুর, লুটপাট সহ ককটেল বিস্ফোরণ মামলায় ২ জনকে আটক করা হয়েছে।

আটকৃতরা হলেন- স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী আতাউর রহমানের (আনারস) ভাই আল মাহমুদ ওরফে মন্ত্রী ও ভাতিজা জুয়েল হাসান।

বেলকুচি থানার এস আই মাহমুদ আলী জানান, বুধবার সকালে রাজাপুর থেকে তাদের গ্রেফতার করে কোর্টে প্রেরণ করা হয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে নৌকার সমর্থক আব্দুল মজিদ এর বাড়িতে হামলা ভাঙচুর সহ লুটপাটের অভিযোগ করে মামলা করা হয়।

অভিযোগে জানা যায়, বেলকুচি উপজেলার রাজাপুর ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে আচরণ বিধি লঙন সহ স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী আতাউর রহমানের সমর্থকদের বিরুদ্ধে সাধারণ ভোটারদের মাঝে ভয়ভীতি প্রদর্শন সহ ভাংচুর ও লুটপাটের অভিযোগ উঠেছে।

গত ২১ নভেম্বর রাজাপুর গ্রামের আওয়ামী লীগ কর্মী আব্দুল মজিদ এর বাড়িতে স্বতন্ত্র প্রার্থী আতাউর রহমানের সমর্থকরা অস্ত্র নিয়ে অতর্কিত হামলা করে বাড়ি ভাংচুরসহ নগদ টাকা ও স্বর্ণালংকার লুট করে নিয়ে যায় এমন অভিযোগ করে আব্দুল মজিদ জানান, আতাউরের সন্ত্রাসী বাহিনী লাঠি, রামদা, অস্ত্র নিয়ে আমার বাড়িতে হামলা করে ঘর ভাংচুর করে, বাড়ির আলমারি থেকে নগদ ১০ লাখ টাকা ও ১৫ ভরি স্বর্ণের গহনা লুট করে নিয়ে যায়। এ ঘটনায় বেলকুচি থানায় বাড়ি ভাংচুর ও টাকা ও স্বর্ণালংকার লুটের মামলা দায়ের করা হয়েছে।

এ বিষয়ে রাজাপুর ইউনিয়নের আওয়ামী লীগ মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থী সনিয়া সবুর আকন্দ বলেন, আতাউর রহমানের সন্ত্রাসী বাহিনী আমাদের নির্বাচনি পথসভায় একাধিক হামলা করেছে। ককটেল বিস্ফোরণ করেছে আমার আওয়ামী লীগ কর্মীদের ভয়ভীতি প্রদর্শন ও মারপিট করেছে। এ বিষয়ে আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর কাছে অভিযোগ দেয়া হয়েছে।