মিজানুর রহমান মিজান, রংপুর অফিস : নানা আয়োজনে এর মধ্য দিয়ে উদযাপিত হল উত্তরের উচ্চশিক্ষার পাদপীঠ বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের ১৩ তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালিত হয়েছে।

বিশ্ববিদ্যালয়টির ১৩তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে ক্যাম্পাসে জাতীয় ও বিশ্ববিদ্যালয়ের পতাকা উত্তোলন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এবং মহিয়সী নারী বেগম রোকেয়া সাখাওয়াত হোসেনের প্রতিকৃতিতে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ, বৃক্ষরোপণ, ভার্চুয়াল আলোচনা সভা এবং জোহর নামাজের পর কেন্দ্রীয় মসজিদে দোয়া মাহফিলের আয়োজন করা হয়।

২০০৮ সালের ১২ অক্টোবর তৎকালীন তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলে আনুষ্ঠানিকভাবে যাত্রা করে বিশ্ববিদ্যালয়টি। পরে রংপুর মহানগরীর টিচার্স ট্রেনিং কলেজে স্থায়ী ক্যাম্পাসে ২০০৯ সালের ৪ এপ্রিল ৩০০ শিক্ষার্থী ও ১২ জন শিক্ষক নিয়ে শুরু হয়েছিল পাঠদান। ২০১১ সালের ৮ জানুয়ারি কারমাইকেল কলেজের ৭৫ একর জমি অধিগ্রহণ করে সেখানে নিজস্ব ক্যাম্পাসে যাত্রা শুরু হয়।

বর্তমানে ছয়টি অনুষদের অধীনে ২১টি বিভাগে সাড়ে আট হাজার শিক্ষার্থী এবং ১৮১ জন শিক্ষক নিয়ে শিক্ষাদান কার্যক্রম চলছে। চলতি শিক্ষাবর্ষে ম্যানেজমেন্ট ইনফরমেশন নামে নতুন একটি বিভাগের শিক্ষার্থী ভর্তি করা হবে। উচ্চতর গবেষণার জন্য রয়েছে ড. ওয়াজেদ রিসার্চ এন্ড ট্রেনিং ইনস্টিটিউট। নির্মাণাধীন একটি ছাত্রী হলসহ মোট চারটি আবাসিক হল, প্রশাসনিক ভবন, চারটি একাডেমিক ভবন, কেন্দ্রিয় লাইব্রেরি, মসজিদ ক্যাফেটেরিয়া ভবনসহ আবাসিক স্থাপনা রয়েছে। চতুর্দশমঙহ বর্ষে পদার্পণ উপলক্ষে সেশনজটমুক্ত ক্যাম্পাস প্রতিষ্ঠার অঙ্গীকার করলেন উপাচার্য।

অধ্যাপক ডঃ হাসিবুর রশীদ উপাচার্য বলেন, প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষে ক্যাম্পাসে জাতীয় ও বিশ্ববিদ্যালয়ের পতাকা উত্তোলন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এবং মহিয়সী নারী বেগম রোকেয়া সাখাওয়াত হোসেনের প্রতিকৃতিতে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ, বৃক্ষরোপণ, ভার্চুয়াল আলোচনা সভা এবং জোহর নামাজের পর কেন্দ্রীয় মসজিদে দোয়া মাহফিলের আয়োজন করা হয়।