খোলাবার্তা২৪ ডেস্ক : আগামীকাল মঙ্গলবার থেকে সারাদেশে এলাকা ভিত্তিক লোডশেডিং করার ঘোষণা দিয়েছে সরকার। সেই সঙ্গে সপ্তাহে একদিন পেট্রোল পাম্পও বন্ধ রাখা হবে বলে সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

জ্বালানি তেল ও গ্যাসের মূল্য বৃদ্ধির প্রেক্ষাপটে জ্বালানি সাশ্রয়ে লক্ষ্যে সরকার এই সিদ্ধান্ত ঘোষণা করেছে।

সোমবার প্রধানমন্ত্রীর জ্বালানি বিষয়ক উপদেষ্টা তৌফিক-ই-ইলাহী চৌধুরী এসব সিদ্ধান্তের কথা জানিয়ে বলেছেন, জ্বালানি তেলে লোকসান কমাতে এসব উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।

যেসব এলাকায় লোডশেডিং থাকবে, তা আগেভাগে জানিয়ে দেয়া হবে এবং দিনে অন্তত এক থেকে দুই ঘণ্টা লোডশেডিং থাকবে বলে তিনি জানিয়েছেন।

জ্বালানি উপদেষ্টা জানান, জ্বালানিখাতে লোকসান কমাতে ডিজেল-ভিত্তিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রগুলো আজ সোমবার থেকেই বন্ধ রাখা হবে।

এর আগে গ্যাস সংকটের কারণে লোডশেডিং বেড়ে যাওয়ার কথা জানিয়েছিল সরকার। তবে এসব ব্যবস্থা সাময়িক বলে কর্মকর্তারা জানিয়েছেন।

জ্বালানি উপদেষ্টা বলেন, আমাদের ধারণা, এখন এক থেকে দেড় হাজার মেগাওয়াট বিদ্যুতের ঘাটতি হবে। এটা আমরা ফিডার ভিত্তিক লোডশেডিং করে দেবো। এতে দিনে এক থেকে দেড় ঘণ্টা, কোথাও কোথাও দুই ঘণ্টাও লোডশেডিং হতে পারে। কিন্তু দেশের বৃহত্তর স্বার্থে আমাদের সবাইকে এগিয়ে আসতে হবে।

এদিকে আজ বিকেলে জ্বালানি প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ এক সংবাদ সম্মেলনে বলেন, এর পাশাপাশি মসজিদ, মন্দিরসহ সব উপাসনালয়ে এয়ার কন্ডিশনার ব্যবহার বন্ধ করার এবং বিদুৎ ব্যবহারে সাশ্রয়ী হওয়ার জন্য বলা হয়েছে।

তিনি বলেছেন, মঙ্গলবার থেকে দেশের সব এলাকায় এক ঘণ্টা করে লোডশেডিং দেয়া হবে। এক সপ্তাহ পরীক্ষামূলকভাবে এই ব্যবস্থা দেখার পর পরবর্তীতে দুই ঘণ্টা লোডশেডিং দেয়া হতে পারে।

জ্বালানি প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বলেছেন, বিশ্বে জ্বালানি তেল ও গ্যাসের দাম বাড়ায় বিভিন্ন দেশ সাশ্রয়ী হওয়ার জন্য অনেক রকমের পদক্ষেপ নিয়েছে। আমরাও মনে করি আমাদের কিছুটা হলেও সাশ্রয়ী হওয়া দরকার।

সকল দোকানপাট রাত আটটার মধ্য বন্ধ করার নির্দেশনার কথা জুন মাসেই আবারো স্মরণ করিয়ে দিয়েছিল প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়।

মাত্র এক বছর আগেই ২৫ হাজার মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদনের সক্ষমতার কথা মহাসমারোহে ঘোষণা করেছিল বাংলাদেশের সরকার। সেই উপলক্ষকে উদযাপনের জন্য বড় আয়োজনও করা হয়েছিল সেই সময়।