বন্যা তালুকদার, পাথরঘাটা (বরগুনা) প্রতিনিধি : বরগুনার পাথরঘাটায় বাবার সাথে পূজা দেখতে গিয়ে বখাটেদের কবলে পড়তে হয়েছে এক মুসলিম মেয়েকে। এ ঘটনায় ৬ জনের বিরুদ্ধে সোমবার সকালে পাথরঘাটা থানায় লিখিত অভিযোগ দিয়েছে বাবা আব্দুল জলিল। সে পেশায় একজন ব্যাটারী চালিত রিকশা চালক।‌ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন পাথরঘাটা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ওসি আবুল বাশার।

অভিযুক্তরা হলো উপজেলার কাকচিড়া ইউনিয়নের বাইনচটকী গ্রামের আবুল কালামের ছেলে জাকারিয়া (২০) , বাবুলের ছেলে ইব্রাহিম ( ২০ ), আঃ ছত্তারের ছেলে হায়দার ( ২২ ), আবদুল কুদ্দুসের ছেলে বাবু (২৮), আলমগীরের ছেলে ফিরোজ, রুস্তমের ছেলে ছাহাবিল।

মেয়ের বাবা আব্দুল জলিল জানান, গত ১৪ অক্টোবর রাত্র আটটার দিকে আমার মেয়েকে নিয়া হরিদ্রা বাজারের পূজা মন্ডবে পূজা দেখতে যাই। সে। হঠাৎ করে পূজা মন্ডবে একটি ছেলে অসুস্থ হয়ে পড়লে মেয়েকে পূজা মন্ডবের রাস্তার পাশে ফুসকা দোকানে দাঁড় করিয়ে রেখে অসুস্থ ছেলেটিকে নিয়ে কাকচিড়া বাজারে যাই। এ সময় অভিযুক্তরা আমার মেয়েটিকে ডাক দিয়ে ফুসকা দোকান থেকে কিছুটা দূরে নিয়া তাহার সাথে খারাপ অশালীন ব্যবহার করে ।

এ সময় আমার মেয়ে তাদের কথার প্রতিবাদ করিলে জাকারিয়া আমার মেয়ের গলায় ছুরি ধরে তাহাকে অন্যত্র নিয়া নষ্ট করার হুমকি দিয়ে অন্যত্র নিয়া যাওয়ার জন্য তার পড়নে থাকা কাপড় চোপড় টানা হেচরা শুরু করে। এসময় মেয়ে ডাকচিৎকার দিলে আশে পাশের লোকজন এসে আমার মেয়েকে বখাটেদের হাত থেকে উদ্ধার করে । খবর পেয়ে আমি তাৎক্ষণিক ঘটনাস্থলে আসলে মেয়েকে কাঁদতে দেখে বিষয়টি স্থানীয়দের ও জনপ্রতিনিধিদের জানালে তারা বিচার করবে আশ্বাস দিয়েও কোনো সমাধান করে নি।

পাথরঘাটা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ওসি আবুল বাশার জানান, মেয়েটির বাবা থানায় এসে লিখিত অভিযোগ দিলে বিষয়টি আমলে নিয়ে বখাটেদের আটক করতে রাতেই বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে পুলিশ। এ ঘটনার সাথে জড়িত অপরাধীদের ছাড় দেয়া হবে না বলেও জানান তিনি।