আবু বাককার সুজন, বাগমারা : বাগমারায় অপটিক্যাল ফাইবার সংযোগসহ সব ইউনিয়নকে ডিজিটাল নেটওয়ার্কের আওতায় আনার কাজ শুরু হয়েছে। এ ছাড়া খুব শিগগিরই উপজেলা সদরের সঙ্গে জেলা সদরের একটি কল্যাণমূখী যোগাযোগ ব্যবস্থা চালু হবে। ৫৫৮ কোটি টাকা ব্যয়ে এই পরিকল্পনা বাস্তবায়নের কাজ শুরু করেছে বাগমারার স্থানীয় সরকার প্রকৌশলী অধিদপ্তর।

উপজেলা এলজিইডি অধিদপ্তরের দেয়া তথ্য মতে, চলতি ২০২২-২৩ অর্থ বছরে জিওবিএম কর্মসূচীর আওতায় ১০ কোটি টাকা ব্যয়ে মাধাইমুড়ি থেকে ভাগনদী পর্যন্ত ৩.৬২৫ কি: মি:, ভবানীগঞ্জ জিসি থেকে ঝিকরা ইউপি কার্যালয় পর্যন্ত ২.৫৫ কি: মি:, তাহেরপুর পৌরসভা থেকে মোহনগঞ্জ হাট পর্যন্ত ১.৭০ কি: মি:, তালতলি হাট থেকে মাড়িয়া ইউপি কার্যালয় পর্যন্ত ০.৫৫০ কি: মি: এবং কনোপাড়া হাট থেকে গোয়ালকান্দি ইউপি কার্যালয় পর্যন্ত ০.৫০০ কি: মি: সময়ান্তর রক্ষণাবেক্ষণ রাস্তার কাজ খুব শিগগিরই শুরু হবে। এ জন্য জেলা স্থানীয় সরকার প্রকৌশলী অধিদপ্তরের নির্বাহী পরিচালকের কাছে গত ২৫ জুলাই রাস্তার প্রাক্কলন প্রেরণ করা হয়েছে।

এ ছাড়া চলতি অর্থ বছরে আরো ৩০ কোটি টাকা ব্যয়ে ভবানীগঞ্জ থেকে বীরকুৎসা পর্যন্ত ডাবললেন সড়কের প্রাক্কলন প্রেরণ করা হয়েছে। ৬ কোটি টাকা ব্যয়ে আরফান প্রজেক্টের ৮ কি: মি: রাস্তা সার্ভের কাজ এবং আই.আর.আই.ডিপি- ৩ এর আওতায় সাড়ে ১২ কোটি টাকা ব্যয়ে প্রকল্পের কাজ চলমান রয়েছে। ২০০ কোটি টাকা ব্যয়ে আমার গ্রাম আমার শহর প্রজেক্টের কাজ আগামী ডিসেম্বরে শুরু হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। জিওবি মেন্টেনেন্স প্রজেক্ট থেকে প্রাপ্ত ১২ কোটি টাকা ব্যয়ে সমষপাড়া, গুনিয়াডাঙ্গা ও ভাগনদী এই তিনটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের নতুন ভবন নির্মাণ কাজের টেন্ডার প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।

উপজেলা প্রকৌশলী (এলজিইডি) মো: খলিলুর রহমান জানান, উপজেলা সদর ভবানীগঞ্জ থেকে ১৬ টি ইউপি কার্যালয়ের সঙ্গে সংযোগপূর্ণ সড়কগুলো ডাবললেন করলেও পূর্বের ব্রিজ-কালভেটগুলো সিঙ্গেললেন হওয়ায় সেগুলো অপসারণ করে ৩০০ কোটি টাকা ব্যয়ে সুপার- বি প্রজেক্টের আওতায় ৩৯ টি ডাবললেন ব্রিজ ও কাটভেট নির্মাণ কাজ প্রক্রিয়াধীণ রয়েছে।

এছাড়া আরো ৬০০ কি: মি: নতুন রাস্তার আইডি তৈরির কাজও প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। এ জন্য মাননীয় এমপি মহোদয়ের পরামর্শে উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের কাছে প্রস্তাব পাঠানো হয়েছে।

এ বিষয়ে সংসদ সদস্য ইঞ্জিনিয়ার এনামুল হক বলেন, মানুষ ঘর থেকে বের হওয়ার পর আবারো যেনো নিরাপদে ঘরে ফিরতে পারেন। বাগমারাবাসীর এই নিরাপত্তা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে অপটিক্যাল ফাইবার সংযোগসহ সব ইউনিয়নকে ডিজিটাল নেটওয়ার্কের আওতায় আনা হবে। এছাড়া সকল গ্রামকে শহরের মত করে গড়ে তোলার ব্যবস্থা করা হবে। সর্বপরি বাগমারাকে একটি আধুনিক ও উন্নতদেশের গ্রামীণ জনপদের ন্যায় তথ্যপ্রযুক্তিভিত্তিক ও নিরাপদ মডেল উপজেলায় রুপান্তরের পরিকল্পনা রয়েছে। এই সব পরিকল্পনা বাস্তবায়নের জন্য কাজও শুরু করা হয়েছে।