বাগমারা (রাজশাহী) প্রতিনিধি : বাগমারায় ধর্ষণে ব্যর্থ হয়ে পুত্রবধূকে গলাটিপে হত্যা করেছে শ্বশুর। এ ঘটনায় ঘাতক শ্বশুর, শাশুড়ি ও স্বামীকে পুলিশ আটক করেছে। নিহতের লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে।

থানা সূত্রে জানা গেছে, নওগাঁর মহাদেবপুর উপজেলার বিশ্বনাথ সরকারের একমাত্র মেয়ে মলী রানীর সঙ্গে চার বছর পূর্বে বাগমারার গনিপুর ইউনিয়নের বাজেকোলা গ্রামের সাধন কুমার সরকারের ছেলে প্রদ্যুৎ কুমারের বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকে পুত্রবধূর উপর কুনজর পড়ে শ্বশুরের।

সোমবার রাতে শ্বশুর সাধন কুমার সরকার পুত্রবধূর ঘরে প্রবেশ করে জোরপূর্বক ধর্ষণের চেষ্টা করে। এ সময় পুত্রবধূ মলী রানী চিৎকার শুরু করলে শ্বশুর তার মুখ ও গলা চেপে ধরে। এতে শ্বাসরোধ হয়ে পুত্রবধূ মলী রানী মারা যায়। পরে শ্বশুর ও শাশুড়ি মিলে পুত্রবধূর লাশ ঘরের মধ্যে তীরের সঙ্গে ঝুলিয়ে রাখার চেষ্টা করে।

এ সময় পাড়ার লোকজন এসে তাদের ঘরের মধ্যে আটকিয়ে লেখে থানায় খবর দেয়। পুলিশ এসে মলী রানীর লাশ উদ্ধার করে এবং শ্বশুর সাধান কুমার সরকার, শাশুড়ি রানী বালা দাস ও স্বামী প্রদ্যুৎ কুমারকে আটক করে।

বাগমারা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রবিউল ইসলাম জানান, এই হত্যা কান্ডের ঘটনায় নিহত মলী রানীর বাবা বাদী হয়ে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেছেন। আটকদের জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে।