বাগমারা (রাজশাহী) প্রতিনিধি : বাগমারায় গ্রাহকদের দুই কোটি টাকা আত্মসাৎ করে পালিয়ে গেছে মহিলা উন্নয়ন সংস্থা (মৈত্রী) নামে একটি এনজিও।

এ ঘটনায় মামুনুর রশিদ নামে এক প্রতারিত গ্রাহক বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় থানায় মামলা দায়েরের পর এনএসআই রাজশাহীর সদস্য ও পুলিশ যৌথভাবে অভিযান চালিয়ে রাতেই ওই এনজিওর ম্যানেজার জাহাঙ্গীর আলম বাবুকে আটক করেছে।

সে মাড়িয়া ইউনিয়নের নিমপাড়া গ্রামের আবুল কালামের ছেলে।

 

মামলা সূত্রে জানা গেছে, বাগমারার উপজেলা সদর ভবানীগঞ্জ পৌরসভার চাঁনপাড়া মহল্লায় বশার হিমাগারের পাশে গত মাসে একটি বাড়ি ভাড়া নিয়ে জাহাঙ্গীর আলম বাবুর নেতৃত্বে কয়েকজন প্রতারক মহিলা উন্নয়ন সংস্থা (মৈত্রী) নামে একটি এনজিও’র সাইন বোর্ড (এম আর এ সনদ নং- ০০১৮০-০০৬৭৯/২০০২/১৯৮৮) ঝুলিয়ে দিয়ে ঋণ প্রদানের নামে সদস্য সংগ্রহ শুরু করে।

ওই এনজিওর ম্যানেজার হিসাবে দায়িত্বপালন করছিলেন জাহাঙ্গীর আলম বাবু। মাত্র এক মাসের ব্যবধানে তার নেতৃত্বে ওই এনজিও কর্মীরা বিভিন্ন গ্রামে গিয়ে ঋণ দেয়ার প্রলোভন দিয়ে পাঁচ শতাধিক গ্রাহকের কাছে থেকে প্রায় দুই কোটি টাকা জামানত নিয়ে সোমবার রাতে অফিসে তালা দিয়ে সব আসবাবপত্র নিয়ে পালিয়ে যায়।

বাগমারা থানার ওসি রবিউল ইসলাম জানান, প্রতারিত গ্রাহকদের পক্ষ থেকে মামলা দায়েরের পর এনএসআই এর সার্বিক সহযোগীতায় ভবানীগঞ্জ গোডাউন মোড় থেকে রাত ৮টার দিকে ওই এনজিওর ম্যানেজার জাহাঙ্গীর আলম বাবুকে আটক করা হয়েছে।