আবুল কালাম আজাদ, বগুড়া অফিস : প্রায় ১০ বছর পর আগামী ২ নভেম্বর বহুল প্রতিক্ষিত বগুড়া জেলা বিএনপির দ্বিবার্ষিক কাউন্সিল হতে যাচ্ছে। উক্ত কাউন্সিলে তৃণমূলের সরাসরি ভোটে জেলা কমিটির সভাপতি, সাধারণ সম্পাদক ও ৩ জন সাংগাঠনিক সম্পাদক নির্বাচিত হবেন। গত সপ্তাহে জেলা বিএনপির আহবায়ক কমিটির সভায় আলোচনার পর দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান তা অনুমোদন দেন বলে দলীয় সূত্রে জানা গেছে।

কাউন্সিলে প্রধান অতিথি হিসেবে ভার্চূয়ালী যোগ দেবেন ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান । দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর কাউন্সিলে স্বশরীরে উপস্থিত থাকবেন বলে জানা গেছে।

দলীয় সূত্রে জানা গেছে, বিএনপির হাই কমান্ডের নির্দেশে জেলা বিএনপির ২৪ টি সাংগাঠনিক থানার মধ্যে ইতোমধ্যে ২২টির কাউন্সিল সম্পন্ন হয়েছে। ধুনট উপজেলা ও পৌর বিএনপির সম্মেলন বাকী রয়েছে। জেলা সম্মেলনের আগে এ দুটি ইউনিটের সম্মেলন না হওয়ায় ওই দুই আহবায়ক কমিটির সদস্যরা ভোটার হতে পারবেন না। ফলে ২ হাজার ২২২ জন ভোটার এ কাউন্সিলে ভোটার হবেন বলে নিশ্চিত করেছেন নির্বাচন পরিচালনা কমিটির সদস্য ও সদর উপজেলা বিএনপির সভাপতি মাফতুন আহমেদ খান রুবেল।

তিনি জানান, নির্বাচনের তফশিল ১৫ অক্টোবর শনিবার সকালে ঘোষণা করা হবে। সম্মেলন ঘিরে দলীয় কার্যালয় এখন সরগরম। গভীর রাত পর্যন্ত জেলা বিএনপি কার্যালয় এখন নেতাকর্মীদের পদচারনায় মুখরিত।

এ দিকে কাউন্সিল সফল করতে সিনিয়র নেতৃবৃন্দকে নিয়ে সম্মেলন প্রস্তুত কমিটি গঠন করা হয়েছে। এর মধ্যে উপদেষ্টা কমিটির সদস্য করা হয়েছে ৪ জনকে। তারা হলেন চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা অ্যাডভোকেট এ কে এম মাহবুবর রহমান ও হেলালুজ্জামান তালুকদার লালু, বগুড়া সদরের সংসদ সদস্য ও সাবেক জেলা আহবায়ক গোলাম মোঃ সিরাজ এবং জাতীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য কাজী রফিকুল ইসলাম।

নির্বাচন পরিচালনা কমিটির আহ্বায়ক জেলা বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম আহবায়ক অ্যাডভোকেট এ কে এম সাইফুল ইসলাম, সদস্য সচিব জেলা যুগ্ম আহবায়ক মোশারফ হোসেন এমপি, সদস্য একেএম আহসানুল তৈয়ব জাকির, অ্যাডভোকেট হামিদুল হক চৌধুরী হিরু, মীর শাহে আলম, মোর্শেদ মিলটন, মাফতুন আহমেদ খান রুবেল এবং এ কে এম তৌহিদুল আলম মামুন।

সম্মেলনে প্রার্থী হওয়ার আগ্রহ দেখিয়ে কমিটি থেকে পদত্যাগ করেছেন জেলা যুগ্ম আহবায়ক ফজলুল বারী তালুকদার বেলাল ও বগুড়া শহর বিএনপির সভাপতি হামিদুল হক চৌধুরী হিরু।

ইতোমধ্যে ২২টি ইউনিট আলাদাভাবে ১০১ সদস্য বিশিষ্ট পূর্নাঙ্গ কমিটির তালিকা সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটির নিকট জমা দেয়া হয়েছে। এতে কাউন্সিলরের সংখ্যা হয়েছে ২ হাজার ২২২জন।

আসন্ন কাউন্সিলে জেলা সভাপতি, সাধারণ সম্পাদক ও সাংগাঠনিক সম্পাদক পদ প্রত্যাশীরা প্রচারণা শুরু করেছেন। যাদের নাম সভাপতি পদে নেতাকর্মীদের মাঝে আলোচিত হচ্ছে তারা হলেন, বর্তমান আহবায়ক ও সাবেক সভাপতি রেজাউল করিম বাদশা, সাবেক সভাপতি ভিপি সাইফুল ইসলাম, ফজলুল বারী তালুকদার বেলাল, সাধারন সম্পাদক পদে বর্তমান আহবায়ক কমিটির সদস্য আলী আজগর তালুকদার হেনা , জয়নাল আবেদীন চাঁন, এম আর ইসলাম স্বাধীন, সাংগাঠনিক সম্পাদকের ৩টি পদে কেএম খায়রুল বাশার ,সহিদ উন নবী সালাম, তাহা উদ্দিন নাহিন, মোশারফ হোসেন স্বপন, আব্দুল আজিজ হীরা। সম্ভাব্য প্রার্থীরা কাউন্সিলরদের সাথে সৌজন্য সাক্ষাত করে দোয়া ও সহযোগিতা কামনা করছেন।

উল্লেখ্য, ২০১২ সালের সর্বশেষ কাউন্সিলে ভিপি সাইফুল ইসলাম সভাপতি, জয়নাল আবেদীন চাঁন সাধারন সম্পাদক ও মীর শাহে আলম সাংগাঠনিক সম্পাদক নির্বাচিত হন। এরপর ওই কমিটি মেয়াদ উত্তীর্ণ হওয়ায় ভেঙ্গে দিয়ে ২০১৯ সালের ১৫ মে গোলাম মোঃ সিরাজকে আহবায়ক করে আহবায়ক কমিটি গঠন করা হয়।

সর্বশেষ ২০২১ সালের ১৩ নভেম্বর বগুড়া পৌর মেয়র রেজাউল করিম বাদশাকে আহবায়ক করে কয়েক জন সদস্যকে কমিটিতে কো অপ্ট করা হয়। কেন্দ্রীয় কমিটির নির্দেশে ২০১৯ সালের ১৫ মে মেয়াদোত্তীর্ণ বগুড়া জেলা বিএনপির নির্বাহী কমিটি ভেঙে দিয়ে গোলাম মো. সিরাজকে আহ্বায়ক করে ৩১ সদস্যের কমিটি গঠন করা হয়।

জেলা আহ্বায়ক কমিটি তৃণমুল পর্যায়ে কমিটি পুনর্গঠনের লক্ষ্যে ২০১৯ সালের ১৬ আগস্ট দলের সব ওয়ার্ড, ইউনিয়ন, পৌরসভা ও উপজেলা কমিটি বিলুপ্ত করে। একই বছরের ৩১ আগস্টের মধ্যে উপজেলা ও পৌর শাখার ২৪টি সাংগাঠনিক থানা শাখার আহ্বায়ক কমিটি গঠন করা হয়। ২০২১ সালের ১৩ নভেম্বর জেলা বিএনপির আহ্বায়ক গোলাম মো. সিরাজের স্থলে আহ্বায়কের দায়িত্ব পান বগুড়া পৌরসভার মেয়র রেজাউলক করিম বাদশা।