বগুড়া অফিসসারিয়াকান্দি সংবাদদাতা : বগুড়ায় বন্যা পরিস্থিতির আরো অবনতি হয়েছে । বন্যা কবলিত এলাকায় দিন দিন দুর্ভোগ বাড়ছে। খাবার পানি, রান্না করা খাবার সংকট দেখা দিয়েছে।

যমুনা নদীর পানি বুধবার আরো বেড়ে বিপৎসীমার ৬৪ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হয়। পানি বাড়তে থাকায় নতুন করে গ্রাম প্লাবিত হচ্ছে। জেলা প্রশাসন থেকে বন্যাদুর্গত এলাকায় ত্রান সামগ্রী বিতরণ শুরু করেছে।

বগুড়া কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্রে জানা গেছে, এবারের বন্যায় জেলার সারিয়াকান্দি, সোনাতলা ও ধুনট উপজেলায় এখন পর্যন্ত ৩ হাজার ৪৬৫ হেক্টর জমির ফসল পানিতে তলিয়ে গেছে। এরমধ্যে পাট ২ হাজার ৮৫০ হেক্টর, আউশ ৫৯০ হেক্টর, ভুট্টা, ধৈঞ্চা ও বিভিন্ন প্রকার সবজির ক্ষেত রয়েছে।

সারিয়াকান্দি উপজেলায় বন্যায় ১০ হাজার ২৫০ টি টিউবওয়েল পানিতে তলিয়ে যাওয়ায় বিশুদ্ধ পানির অভাব দেখা দিয়েছে। ১ লাখ ১০ হাজার গবাদিপশু পানিবন্দী হয়েছে। পশুখাদ্য তলিয়ে যাওয়ায় সীমাহীন দুর্ভোগে রয়েছে গবাদিপশুগুলো। পানিতে আংশিকভাবে নিমজ্জিত হয়েছে ৫৫০ টি বাড়ীঘর। ডুবে গেছে উপজেলার ৬৮ টি কাঁচারাস্তা, ৩ টি পাকারাস্তা এবং ৯ টি ব্রিজ। ৩১ টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের আংশিক ডুবে গেছে।

সোনাতলা উপজেলার বন্যা পরিস্থিতি স্থিতিশীল রয়েছে। এ মুহুর্তে যমুনা নদীতে পানি বিপদসীমার ৬৪ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে এবং বাঙালি নদীর পানি ৩.৭ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। উপজেলার ৩ ইউনিয়ন তেকানী চুকাইনগর, পাকুল্লা ও মধুপুর ইউনিয়নের ২৫ টি গ্রামে বন্যার পানি প্রবেশ করেছে।

বন্যায় আক্রান্ত হয়েছে ৬৪৩ হেক্টর জমির ফসল। পানিবন্দি অবস্থায় রয়েছে ৫ হাজার ২শ’ পরিবারের ২০ হাজার ১ শ’ ২৮ জন মানুষ। বন্যার কারণে পাঠদান বন্ধ রয়েছে ১৫ টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, একটি দাখিল মাদ্রাসা এবং একটি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজ।

সোনাতলা উপজেলা নির্বাহী অফিসার সাদিয়া আফরিন জানান, ‘বন্যাদুর্গত মানুষের জন্য সরকারিভাবে ১৫ মেট্রিক টন চাল ও ৩ লাখ টাকা বরাদ্দ এসেছে। এ চালগুলো আমরা বন্যা উপদ্রুত ৩ ইউনিয়নের চেয়ারম্যানদের নিকট হস্তান্তর করেছি।

বগুড়া জেলা ত্রাণ কর্মকর্তা গোলাম কিবরিয়া জানান, ৩৩ হাজার পরিবারের ৭৭ হাজার মানুষ পানি বন্দি হয়েছে। পানিবন্দি হয়ে থাকায় বানভাসিদের মাঝে পর্যাপ্ত পরিমান ত্রাণ সামগ্রী পৌঁছানো হচ্ছে। গতমঙ্গলবার বগুড়া জেলা প্রশাসক মোঃ জিয়াউল হক বন্যাদুর্গত এলাকায় গিয়ে ত্রাণ সামগ্রী বিতরন করেছেন।

এদিকে ধুনট উপজেলায় যমুনা নদীর পানিতে ডুবে আতিক হাসান (৭) নামে এক শিশু নিখোঁজ হয়েছে। বুধবার দুপুর ১২টার দিকে উপজেলার ভান্ডারবাড়ি ইউনিয়নের শিমুলবাড়ি সড়কের কালভার্টের কাছে এ ঘটনা ঘটে। সে উপজেলার গোসাইবাড়ি পুর্বপাড়ার কমল হোসেনের ছেলে।