আকরাম হোসাইন, বগুড়া প্রতিনিধি : বগুড়ায় সদরে কানছগাড়ী এলাকায় প্রকাশ্যে বিএইচ ফার্মেসির দোকানের সামনে উপর্যুপরি ছুরিকাঘাতে খায়রুল ইসলাম সুমন (২৮) নামে এক যুবককে খুন করেছে দুর্বৃত্তরা।

নিহত খায়রুল ইসলাম সুমন রংপুর শহরের সাতগাড়া মিস্ত্রী পাড়ার আব্দুল খালেকের ছেলে। তিনি বগুড়া শহরতলীর সাবগ্রাম এলাকায় বসবাস করতেন এবং তার নিজস্ব প্রাইভেট কার ভাড়ায় চালাতেন।

বুধবার (২৯ সেপ্টেম্বর) ১১টার দিকে শহরের শেরপুর রোডে কানছগাড়ি এলাকায় এ খুনের ঘটনা ঘটে।

এ ঘটনায় পুলিশ নিহতের প্রাইভেট কারসহ তার সহযোগী চয়ন নামে এক যুবকে আটক করেছে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, রাত সাড়ে ১০টার পর থেকেই ওই প্রাইভেট কারটি শেরপুর রোডে কানছগাড়ি এলাকায় উপশম ডায়াগনেস্টিক সেন্টারের সামনে অপেক্ষা করছিল। রাত ১১টার দিকে দুই যুবক আসলে খায়রুল ইসলাম গাড়ি থেকে নামে এবং তাদের সাথে বাকবিতণ্ডায় জড়িয়ে পড়েন।

বাকবিতণ্ডার এক পর্যায়ে খায়রুলকে ছুরিকাঘাত করা হলে তিনি দৌড়ে বি এইচ ফার্মেসির দোকানে প্রবেশ করে আত্মরক্ষার চেষ্টা করেন। এ সময় ওই দুই যুবক ফার্মেসির ভিতরে প্রবেশ করে খায়রুলকে উপর্যুপরি ছুরিকাঘাত করে শেরপুর রোডের পশ্চিম পার্শ্বের গলি দিয়ে পালিয়ে যান।

পরে স্থানীয় লোকজন তাকে উদ্ধার করে বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যান। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। হত্যাকাণ্ডের পরপরই পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে নিহতের প্রাইভেট কার ও তার সাথে থাকা নারুলী এলাকার চয়ন নামের এক যুবককে আট করে।

মাদক ব্যবসা নিয়ে বিরোধের জের ধরে এই হত্যাকাণ্ড সংঘটিত হতে পারে বলে প্রাথমিক ভাবে পুলিশ ধারণা করছে।

বগুড়া সদর থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) আবুল কালাম আজাদ বলেন, আটক যুবকে জিজ্ঞাসাবাদ করে হত্যাকাণ্ডের নেপথ্যের কারণ জানার চেষ্টা করা হচ্ছে। এছাড়াও জড়িতদের শনাক্ত এবং গ্রেফতার করতে অভিযান শুরু হয়েছে।