বগুড়া অফিস : বগুড়ার বাজারে সয়াবিন তেলসহ নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্য কিনতে গিয়ে যখন ক্রেতারা নাকানি চুবানী খাচ্ছেন ঠিক সেই মূহুর্তে পেঁয়াজের দাম এক লাফে কেজিতে ১০ টাকা বেড়ে গেছে। ভারতীয় পেঁয়াজ আমদানি বন্ধ থাকায় দেশীয় পেঁয়াজের উপর চাপ বেড়ে যাওয়ায় এমন অবস্থা সৃষ্টি হয়েছে বলে জানা গেছে।

ব্যবসায়ীরা বলছেন, দীর্ঘদিন আমদানি বন্ধ থাকলে দাম আরো বাড়বে । তবে দেশে এ মূহুর্তে পর্যাপ্ত দেশীয় পেঁয়াজ মজুদ থাকার পরেও দাম বাড়ার কোন যৌক্তিক কারণ খুঝে পাচ্ছেন না ক্রেতারা।

বগুড়ার রাজাবাজার, ফতেহ আলী বাজার, বকসিবাজার ঘুরে দেখা গেছে, এসব বাজারেভারতীয় ও দেশীয় পেঁয়াজের সরবরাহ রয়েছে। এরপরেও দাম ঊর্ধ্বমুখী। এক সপ্তাহ আগে এই বাজারে দেশি পেঁয়াজ পাইকারি বিক্রি হয়েছিল ২৫ থেকে ২৮ টাকা কেজি দরে যা খুচরা বিক্রি হয়েছিল ২৭ থেকে ৩২ টাকা দরে। গত তিন দিনের ব্যবধানে সেই পেঁয়াজ বুধবার খুচরা বাজারে বিক্রি হয়েছে ৪০ টাকা দরে।

বকসি বাজারের পেঁয়াজ ক্রেতা বাদল বলেন, হঠাৎ পেঁয়াজের দাম বেড়ে গেছে। আমরা দুই দিন আগে ৩২ থেকে ৩৫ টাকা কেজিতে পেঁয়াজ কিনেছি। কিন্তু আজকে ৪০ টাকা কেজি কিনতে হচ্ছে।

রাজাবাজারের পেঁয়াজ ব্যবসায়ী হান্নান বলেন,হঠাৎ করেই পেঁয়াজের দাম বেড়ে গেছে। দেশি পেঁয়াজের সরবরাহের পাশাপাশি ভারত থেকে পেঁয়াজ আমদানি কমে গেছে। তাই দামও বেড়ে গেছে। তাই আবারো আমদানি বাড়লে দাম কমে যাবে।

রাজাবাজার আড়ৎদার ব্যবসায়ী সমিতির সাধারণ সম্পাদক পরিমল প্রসাদ রাজ বলেন, ‘ভারত থেকে পেঁয়াজ আমদানি বন্ধ থাকায় বাজারে দাম বেড়েছে। আমদানি চালু না হলে পেঁয়াজের দাম আরও বাড়ার আশংকা রয়েছে।