ফাইল ছবি

শেখ মোহাম্মদ আলী, সুন্দর বন অঞ্চল প্রতিনিধি : বঙ্গোপসাগরে অপহরণের ৪ দিন পরে অপহৃত ৭ জেলেকে জলদস্যুরা মঙ্গলবার রাতে ছেড়ে দিয়েছে। ছাড়া পাওয়া জেলেরা কুয়াকাটা নৌপুলিশের হেফাজতে রয়েছে বলে জানা গেছে।

বাগেরহাট জেলা ফিশিং ট্রলার মালিক সমিতির সভাপতি ও শরণখোলার মৎস্য ব্যবসায়ী এম সাইফুল ইসলাম খোকন বুধবার দুপুরে জেলেদের বিভিন্ন সূত্রের মাধ্যমে প্রাপ্ত খবরের বরাত দিয়ে জানান, গত শনিবার (২০ নভেম্বর) রাতে বঙ্গোপসাগরের কচিখালীর দক্ষিণে গাঙ্গের আইন এলাকা থেকে শরণখোলার দুই জেলে লোকমান হোসেন (৬০) ও জামাল হোসেন (৫০) সহ সাগর থেকে অপহরণ করে নিয়ে যওয়া সাত জেলেকে অপহরণের চারদিন পরে মঙ্গলবার রাতে পটুয়াখালীর চরমোন্তাজ এলাকার সাগরে মানুষবিহীন একটি ট্রলারে উঠিয়ে ছেড়ে দিয়ে চলে যায়।

পরে মুক্তি পাওয়া জেলেরা সারারাত ট্রলার চালিয়ে বুধবার ভোরে কুয়াকাটা সমুদ্র সৈকতে এসে পৌঁছে।

কুয়াকাটার জেলেরা ঐ জেলেদের দস্যুদল সন্দেহে আটক করে। খবর পেয়ে কুয়াকাটা নৌপুলিশ ফাড়িঁর সদস্যরা জেলেদের তাদের হেফাজতে নেয়।

কুয়াকাটা নৌপুলিশ ফাড়িঁর এএসআই মোঃ কামরুজ্জামান মোবাইল ফোনে দস্যুদের কবল থেকে জেলে ছাড়া পাওয়ার খবর নিশ্চিত করে জানান, বিষয়টি উর্ধতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে।

শরণখোলা থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ সাইদুর রহমান জানান, বঙ্গোপসাগরে অপহৃত শরণখোলার দুইজনসহ সাতজন জেলে কুয়াকাটা নৌপুলিশের হেফাজতে রয়েছে। প্রয়োজনীয় আইনগত প্রক্রিয়া শেষে জেলেদের পরিবারের জিম্মায় দেওয়া হবে বলে ওসি জানান।