হারিস মোহাম্মদ, জুড়ী : পরিবেশ মন্ত্রী মোঃ শাহাব উদ্দিন বলেন, পাহাড় টিলা কাটা যাবে না। যারা পাহাড় টিলা কাটার সাথে জড়িত তাদের বিরুদ্ধে প্রশাসনকে ব্যবস্থা নিতে হবে।

তিনি আরো বলেন, ১০ কোটি টাকা ব্যয়ে জুড়ী শহরে সড়ক উন্নয়নের কাজ চলছে। জুড়ী ফুলতলা আঞ্চলিক সড়কের ৮০ ভাগ কাজ শেষ হয়েছে। শীঘ্রই সকল কাজ সমাপ্ত হবে। আরো একশ কোটি টাকার প্রকল্প হাতে নেয়া হয়েছে। এ ছাড়াও লাঠিটিলায় বঙ্গবন্ধু সাফারি পার্ক নির্মাণ হবে। এটি স্থাপন হলে দেশ বিদেশের পর্যকরা এখানে আসবেন। এতে জুড়ীর মান মর্যাদা বাড়বে। দেশের অর্থনীতিতে এ সাফারি পার্ক উল্লেখযোগ্য ভূমিকা রাখবে।

শীতবস্ত্র নিতে আসা মানুষদের উদ্দেশ্য তিনি বলেন, এক সময় শীতের আগেই মানুষ কাঁথা তৈরী করত। বাংলাদেশের মানুষ এখন আর কাঁথা ব্যবহার করে না। সবাই লেপ-তোষক ব্যবহার করে। কিছু কিছু মানুষ কাঁথার সেই ঐতিহ্যকে ধরে রেখেছে। কিছু নিন্ম আয়ের মানুষ আছে, তাদের পাশে আওয়ামী লীগ সরকার রয়েছে।

জুড়ী উপজেলা প্রশাসনের সার্বিক ব্যবস্থাপনায় পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী মোঃ শাহাব উদ্দিন এমপির ব্যক্তিগত তহবিল থেকে ১ হাজার ৭০০ শীতার্ত মানুষের মধ্যে শুক্রবার (২০ জানুয়ারী) বিকাল সাড়ে ৩টায় উপজেলা পরিষদ অডিটোরিয়ামে কম্বল বিতরণ করা হয়।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রঞ্জন দে’র সভাপতিত্বে ও উপজেলা কৃষি অফিসার মুহাম্মদ জসিম উদ্দিনের সঞ্চালনায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী মোঃ শাহাব উদ্দিন এমপি।

বিশেষ অতিথি বক্তব্য রাখেন, উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান এম এম মোঈদ ফারুক, উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভুমি) রতন কুমার অধিকারী, উপজেলা আওয়ামী লীগ ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মাসুক মিয়া, বড়লেখা উপজেলা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক রফিকুল ইসলাম সুন্দর, জেলা পরিষদ সদস্য বদরুল ইসলাম, বড়লেখা পৌর মেয়র আবু ইমাম মোঃ কামরান চৌধুরী, জুড়ী থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোশাররফ হোসেন, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান রিংকু রঞ্জন দাশ, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান রনজিতা শর্ম্মা, উপজেলা যুবলীগ সভাপতি মামুনুর রশিদ সাজু প্রমুখ।