অমল তালুকদার, পাথরঘাটা (বরগুনা) : বরগুনার পাথরঘাটায় আরডিএফ সংস্থা কর্তৃক বাস্তবায়িত (আউট অব স্কুল চিলড্রেন শিক্ষা কর্মসূচি) এর আওতায় সাত মাসের বেতন ভাতাদি ও বিদ্যালয়ের ঘর ভাড়া আত্মসাতের অভিযোগ উঠেছে আরডিএফের‌ পাথরঘাটা শাখার ব্যবস্থাপকের বিরুদ্ধে।

বৃহস্পতিবার দুপুরে গণমাধ্যম কর্মীদের কাছে এমন অভিযোগ করেন আরডিএফ এর আওতায় ভুক্তভোগী শিক্ষকরা। এ নিয়ে পাথরঘাটা উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে লিখিত অভিযোগ দিয়েও কোনো সুরাহা হয়নি বলে জানান তারা। বিষয়টি নিশ্চিত করে পাথরঘাটা উপজেলা চেয়ারম্যান মোস্তফা গোলাম কবির জানান, আমি এ বিষয়ে আরডিএফ কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করে তাদের পাওনা টাকা দিয়ে দিতে বলেছি।

আরডিএফ সংস্থা কর্তৃক বাস্তবায়িত আউট অব স্কুল চিলড্রেন শিক্ষা কর্মসূচি এর আওতায় নিয়োগকৃত ভুক্তভোগী শিক্ষকরা অভিযোগ করেন জানান, চলতি বছরের ১৩ জানুয়ারি পাথরঘাটা উপজেলায় ৭০ জন নারী পুরুষদের শিক্ষক পদে নিয়োগ দেয়া হয়। নিয়োগ পত্রে পাঁচ হাজার টাকা সম্মানি ভাতা দেয়ার কথা উল্লেখ করা হলেও শুরু থেকে এখন পর্যন্ত সাত মাসের বেতন ভাতা ও স্কুল ঘরের ভাড়া না দিয়ে আত্মসাত করে।

ভুক্তভোগী আসমা আক্তার জানান আরডিএফ কর্তৃপক্ষ আমাদের বেতন ভাতাদি, বিদ্যালয়ের ঘর ভাড়া সহ বিদ্যালয়ের উপকরণ দেয়ার কথা থাকলেও সাত মাস পর্যন্ত প্রদান করেন নাই। কিন্তু আরডিএফ কর্তৃপক্ষ প্রতি মাসেই আমাদের কাছ থেকে বিভিন্ন ভাউচার ও বিভিন্ন ফরমে স্বাক্ষর নিচ্ছে। আমরা দীর্ঘ সাত মাস যাবৎ বেতন না পাওয়ায় আমরা খুবই কষ্ট আছি। এবং বিদ্যালয়ের ঘর ভাড়া না দেওয়ায় ঘর মালিকগণ আমাদেরকে ঘর ছাড়িয়া দেওয়ার নোটিশ দিয়েছি।

ভুক্তভোগী হালিমা আক্তার জানান, তার ইউনিয়নের সুপার ভাইজার মাহবুবুল ইসলামের কাছে বেতন ভাতার কথা আলাপ করলে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে চাকরি ছেড়ে দেয়ার হুমকি দেন। এ বিষয়ে মাহবুবুল ইসলামের কাছে জানতে চাইলে এই বিষয়ে নিউজ না করার জন্য প্রতিবেদককে অনুরোধ করেন।

এই ছাড়াও জাকির হোসেন, রেকসোনা, আফরিন, রোজিনা, রুনু আক্তার সহ একাধিক ভুক্তভোগীরা অভিযোগ করেন জানান নিয়োগ পত্র পাওয়ার জন্য তাদের কাছ থেকে ১০ হাজার থেকে পাঁচ হাজার টাকা পর্যন্ত হাতিয়ে নিয়েছে ব্যাবস্থাপক জহিরুল ইসলাম মিঠু ও সুপার ভাইজার মাহবুল ইসলাম। এর আগে গত বছর চাকরি প্রবণ দেখিয়ে তাদের দ্বারা ঝরে পড়া শিশুদের তালিকা জরিপ করিয়েছে। সেই জরিপের ভাতা ও তারা আত্মসাৎ করেছে।

খোঁজ নিয়ে জানা যায় গত সাত মাসে ৭০ জন শিক্ষক শিক্ষিকার বেতন ভাতা সহ প্রায় ৩৪ লাখ টাকা পাওনা আরডিএফ কতৃপক্ষের কাছে।

পাথরঘাটা উপজেলা মাধ্যমিক একাডেমিক সুপারভাইজার মনিরুজ্জামান জানান, বিভিন্ন সময় এসব স্কুলগুলো প্ররিদর্শন করে সঠিক তথ্য পেয়েছি। এবং তাদের বিল সংক্রান্ত নথিপত্র উর্ধতন কতৃপক্ষের কাছে পাঠিয়েছি।

আউট অব স্কুল চিলড্রেন শিক্ষা কর্মসূচির পাথরঘাটার ব্যাবস্থাপক জহিরুল ইসলাম মিঠু সত্যতা স্বীকার করে জানান, অতিশীঘ্রই শিক্ষকদের বেতন ভাতা দিয়ে দেয়া হবে।