এম. মনিরুজ্জামান, রাজবাড়ী প্রতিনিধি : পাঁচ বছর আগে, ঘাট দিয়ে প্রতিদিন ছোট-বড় দুই থেকে আড়াই হাজার পরিবহন পারাপার হতো। এরজন্য ব্যবহার হতো ১৭টি ফেরি। কিন্তু বতর্মানে যানবাহনের চাপ দ্বিগুন বড়লেও ফেরির সংখ্যা বাড়ানো হয়েছে মাত্র দুটি। ফলে ঘাটে প্রতিদিনই থাকে গাড়ির দীর্ঘ সারি। বতর্মানে এ ঘাট দিয়ে প্রতি ২৪ ঘন্টায় সাড়ে পাঁচ হাজার যানবাহন ফেরি পারাপার হয়। টোল ওঠে প্রায় অর্ধ কোটি টাকা।

কিন্তু কর্তৃপক্ষের দৌলতদিয়া পাটুরিয়া নৌরুটে নতুন বড় বড় ফেরি বাড়নোর কোন আগ্রহ নেই। ফলে দুভোগ কখনও এ রুটের যাত্রী ও চালকদের পিছু ছাড়চ্ছে না। বৈরী আবহাওয়ায় দুভোগ কয়েকহুন বাড়ে। আর তখনই গাড়ি পারের দালালদের দৌরাত্ব বাড়ে। তখন নানান অজুহাতে ফেরি ঘাটে নোঙ্গর করে রাখা। ফলে যানজট আরো বেড়ে যায়।

আসছে ঈদে এই সারি আরো অনেক দীর্ঘ হবে, তা বলার অপেক্ষা রাখে না। তবে ঈদের আগে আজ ২ দিন সাপ্তাহিক ছুটির কারণে শুক্রবার সকাল থেকেই রাজবাড়ীর দৌলতদিয়া ঘাট এলাকায় নদী পারের অপেক্ষায় আটকে আছে পাঁচ শতাধিক যানবাহন। দৌলতদিয়া ফেরি ঘাটের জিরো পয়েন্ট থেকে মহাসড়কের গোয়ালন্দ বাজার পর্যন্ত প্রায় ছয় কিলোমিটার এলাকায় গাড়ির সারি রয়েছে। এরমধ্যে যাত্রীবাহী বাসের সংখ্যা প্রায় একশ।

বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন করপোরেশনের (বিআইডব্লিউটিসি) দৌলতদিয়া কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, পচনশীল পণ্যবাহী যান, যাত্রীবাহী বাস ও জরুরি গাড়ি অগ্রাধিকার ভিত্তিতে পার করা হচ্ছে।

এ নৌপথে রাতে বিআইডাব্লিউটিসির খামখেয়ালীতে ১০টা থেকে ১২টা ফেরি চালু থাকে। ফলে প্রতিদিন সকাল থেকেই দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌরুটে ফেরি চলাচল মারাত্মকভাবে ব্যাহত হয়। এসব কারণেই এই অচলাবস্থার সৃষ্টি হয়েছে।

এ ছাড়া সাপ্তাহিক ২ দিন ছুটির কারনে এবং ফেরি সংকট ও অতিরিক্ত যানবাহনের চাপের কারণে দৌলতদিয়া ঘাট এলাকায় যানজট সৃষ্টি হয়েছে বলে বিআইডব্লিউটিসির দৌলতদিয়া কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে। এতে করে প্রচন্ড গরম ও রৌদ্রতাপে চরম দুর্ভোগের শিকার হচ্ছে শত শত যাত্রী ও চালক।

বিআইডব্লিউটিসির দৌলতদিয়া কার্যালয়ের ম্যানেজার শিহাব উদ্দিন বলেন, নিয়ম মাফিকভাবে যানবাহন পার করা হচ্ছে। তবে রাজধানীগামী গাড়ির চাপ ক্রমাগত বেশি থাকায় প্রত্যহ যানজট লেগেই থাকছে।

আসন্ন ঈদে এ রুটে কমপক্ষে আরো পাচ টি ফেরি বাড়ানো দরকার। তাতে যানজট ছাড়াই স্বাভাবিক ভাবে স্বল্প সময়েই সকল গাড়ি নদী পার হতে পারবে।

বিআইডব্লিউটিসি দৌলতদিয়া ঘাট অফিস জানায়, এই নৌরুটের ১৯টি ফেরির মধ্যে এখন দুটি যান্ত্রিক ত্রুটিতে বিকল। পাটুরিয়ার ভাসমান কারখানা মধুমতিতে ফেরি দুটি মেরামত করা হচ্ছে। তাই বর্তমানে এ রুটে ছোট বড় ১৭টি ফেরি চলাচল করছে।