ইসরাইলের গোয়েন্দা সংস্থা মোসাদের সদস্য মেন্দি এন সাফাদের সাথে গোপন বৈঠকে রাষ্ট্রবিরোধী ষড়যন্ত্র করার প্রতিবাদে নুরুল হক নূর গংকে দ্রুত গ্রেফতার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে সোমবার ৯ জানুয়ারী দুপুর ৩টায় শাহবাগ জাতীয় যাদুঘরের সামনে মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশ করেছে বাংলাদেশ আওয়ামী বিজ্ঞান ও তথ্য প্রযুক্তি লীগ। একই সাথে সমগ্র দেশে “বাংলাদেশ আওয়ামী বিজ্ঞান ও তথ্য প্রযুক্তি লীগ” এর সকল জেলা, মহানগর, বিশ্ববিদ্যালয় ও উপজেলা ইউনিট এই কর্মসূচী একযোগে পালন করে।

জাতীয় জাদুঘরের সামনে সমাবেশে সংগঠনের সভাপতি রহমত উল্লাহ সরকার লিখনের সভাপতিত্বে ও সংগঠনের প্রতিষ্ঠাতা ও সাধারণ সম্পাদক ইঞ্জি. নূর মোহাম্মদ হৃদয়ের সঞ্চালনায় বক্তব্য রাখেন সংগঠনের উপদেষ্টা আরুক মুন্সি, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের ধর্ম বিষয়ক উপ কমিটির সদস্য মাসুম বিল্ল্যাহ নাফিয়ী, আন্তর্জাতিক মানবাধিকার ও দুর্নীতি বিরোধী তদন্ত সোসাইটির সাধারণ সম্পাদক ড. আলহাজ শরিফ সাকি, শাহবাগ থানা কৃষক লীগের সভাপতি হাবিবুর রহমান হাবীব, ঢাকা মহানগর দক্ষিন ছাত্রলীগের সাবেক সহ—সভাপতি ফজলে রাব্বি এলাহী।

এ সময় আরো উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ আওয়ামী বিজ্ঞান ও তথ্য প্রযুক্তি লীগ কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদের সাংগঠনিক সম্পাদক আসাদুজ্জামান আসাদ, ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সভাপতি সাখাওয়াত হোসেন, সাধারণ সম্পাদক সীমান্ত মাহমুদ, ঢাকা মহানগর উত্তরসহ সকল নেতাকর্মী।

দলের প্রতিষ্ঠাতা ও সাধারণ সম্পাদক ইঞ্জি. নূর মোহাম্মদ হৃদয় তার বক্তব্যে বলেন, নুরুল হক নুর রাষ্ট্রবিরোধী ষড়যন্ত্র ও বঙ্গবন্ধু তন্ময়া মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উন্নয়ন রুখে দেওয়ার ষড়যন্ত্র করার কারনে এবং দেশকে অস্থিতিশীল করার ষড়যন্ত্রের কারনে তাকে ইন্টারপোলের মাধ্যমে দেশে এনে কঠোর শাস্তি কার্যকর করার জোর দাবী জানাই। সে যে কাজ করেছে তা সেই ১৯৭১ সালে দেশ বিরোধী রাজাকারের কাজের শামিল। অতীতে রাজাকারদের যেমন বিচার হয়েছিল ঠিক তেমনি তাকেও দেশ বিরোধী হিসেবে সাজা কার্যকর করার জন্য আমাদের সংগঠনের পক্ষ থেকে দাবি জানাই।

এ সময় সাধারণ সম্পাদক ইঞ্জি. নূর মোহাম্মদ হৃদয় ডাকসুর সাবেক ভিপি নুরুল হক নুর দেশে আসলে সংগঠনের পক্ষ থেকে বিমানবন্দরে অবস্থান কর্মসূচি পালনের ঘোষণা দেন। – বিজ্ঞপ্তি